বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Mason Training Program: ৭৫ দিনে ১১ লক্ষ বাড়ি, রাজমিস্ত্রি কই? গড়েপিঠে নিতে রাজ্যে প্রশিক্ষণ শিবির

Mason Training Program: ৭৫ দিনে ১১ লক্ষ বাড়ি, রাজমিস্ত্রি কই? গড়েপিঠে নিতে রাজ্যে প্রশিক্ষণ শিবির

রা ইতিমধ্যেই রাজমিস্ত্রির কাজ করে থাকেন তাঁদের ৯ দিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। (টুইটার)

চাই দক্ষ রাজমিস্ত্রি। যাঁরা কম টাকার মধ্যে দ্রুত বাড়ি বানানোর কাজ শেষ করবেন। কিন্তু অত রাজমিস্ত্রি জোগাড় করতেই ঘুম ছুটেছে পঞ্চায়েত দফতরের কর্তাদের। তাই এবার প্রশিক্ষণ দিয়ে রাজমিস্ত্রিদের আবাস যোজনার কাজে লাগাতে চাইছে পঞ্চায়তে দফতর।

আবাস যোজনা নিয়ে কেন্দ্রের চাপে ছুঁচো গেলার মতো অবস্থা হয়েছে রাজ্য সরকারের। গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রকের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে বাড়ি তৈরির কাজ শেষ করাটাই এখন প্রধান মাথা ব্যথা নবান্নের। ৭৫দিনের মধ্যে ১১ লক্ষ বাড়ি বানানোর কাজ শেষ করতে হবে। তা করতে গেলে চাই দক্ষ রাজমিস্ত্রি। যাঁরা কম টাকার মধ্যে দ্রুত বাড়ি বানানোর কাজ শেষ করবেন। কিন্তু অত রাজমিস্ত্রি জোগাড় করতেই ঘুম ছুটেছে পঞ্চায়েত দফতরের কর্তাদের। তাই এবার প্রশিক্ষণ দিয়ে রাজমিস্ত্রিদের আবাস যোজনার কাজে লাগাতে চাইছে পঞ্চায়তে দফতর।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বাড়ি তৈরির কাজ শেষ করা নিয়ে ইতিমধ্যে একাধিক বৈঠক করেছে পঞ্চায়েত দফতর। কেন্দ্রের যে রুরাল ম্যাশন প্রকল্প রয়েছে, তারই আওতায় দক্ষ-অদক্ষ রাজমিস্ত্রিদের আবাস যোজনার কাজে প্রশিক্ষণ দেওয়া পরিকল্পনা করেছে রাজ্য সরকার। খুব শীঘ্রই রাজ্যের সমস্ত জেলাতে এই প্রশিক্ষণ শিবির শুরু হবে। যে সাতটি সংস্থা এই শিবির প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে তাদের সঙ্গে বৈঠক করা হয়ে। সেই সংস্থাগুলিকে যত দ্রুত সম্ভব প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু করতে বলা হয়েছে।

সব জেলাতেই প্রশিক্ষণ শিবির

৪৫ দিন ধরে প্রশিক্ষণ নেওয়ার শংসাপত্র মিলবে। যারা ইতিমধ্যেই রাজমিস্ত্রির কাজ করে থাকেন তাঁদের ৯ দিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। কেন্দ্রের বরাদ্দ টাকায় কী ভাবে আবাস যোজনার বাড়ি তৈরি করা যায় তারই প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

গত দু'বছর করোনার কারণে এই প্রশিক্ষণ শিবিরের বন্ধ ছিল। আগে সব জেলাতেই রাজমিস্ত্রিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। মর্শিদাবাদ জেলা থেকে কেউ প্রশিক্ষণ নিতে সে ভাবে কোনও আগ্রহ দেখাননি। তার কারণ মুর্শিদাবাদের বহু মানুষ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। তাই কাজ বন্ধ রেখে প্রশিক্ষণ নিতে তাঁদের আগ্রহ দেখা যায়নি।

তবে এবার জরুরি ভিত্তিতে এই প্রশিক্ষণ শুরু করতে চাইছে রাজ্য। কারণ, কেন্দ্রের টাকা এসে গেলে দ্রুত কাজ শুরু করতে হবে। না হলে ১১ লক্ষ বাড়ির তৈরির কাজ শেষ করা কোনও মতে সম্ভব নয়।

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন