বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > আমফান বিধ্বস্ত শোলা শিল্পীরা, সাহায্যের হাত বাড়াল কলকাতার দুর্গাপুজো ফোরাম
আমফানের দাপট (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)
আমফানের দাপট (ফাইল ছবি, সৌজন্য পিটিআই)

আমফান বিধ্বস্ত শোলা শিল্পীরা, সাহায্যের হাত বাড়াল কলকাতার দুর্গাপুজো ফোরাম

  • দীর্ঘদিন ধরে পুজো উদ্যোক্তাদের মুখে হাসি ফোটাচ্ছেন তাঁরা। সেই শোলা শিল্পীদের কিছুটা ভরসা দিলেন কলকাতার পুজো উদ্যোক্তরা।

বছরের পর বছর ধরে তাঁরা কলকাতার বড়-বড় পুজো মণ্ডপে কাজ করেছেন। তাঁদের শিল্পের ছোঁয়া-জাদুতে মুগ্ধ হয়েছে বাঙালি। কিন্তু আমফানের তাণ্ডবে সেই শোলা শিল্পীদের জীবনে কালো মেঘের ঘনঘটা নেমে এসেছে। কেউ হারিয়েছেন ভিটে, কারোর জমিতে ঢুকে পড়েছে নোনা জল। আর সেই শিল্পীদের সাহায্যে এগিয়ে এল কলকাতার দুর্গাপুজো উদ্যোক্তাদের ফোরাম।

মহানগরীর ৩৫০ টি পুজো কমিটির তরফে গত সোমবার ডায়মন্ড হারবারের এনায়েতপুর গ্রামে ১৭০ টি শিল্পী পরিবারকে খাবার এবং ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হয়েছে। সেই ‘ফোরাম ফর দুর্গোৎসব'-র সাধারণ সম্পাদক শাশ্বত বসু বলেন, ‘গত ২০ মে দক্ষিণ ২৪ পরগনার অসংখ্য গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু সর্বত্র যাওয়ার মতো ক্ষমতা আমাদের নেই। তাই আমরা এনায়েতপুরকে বেছে নিয়েছিলাম।'

তিনি জানান, এনায়েতপুরের গ্রামবাসীরা শোলা শিল্পে দক্ষ। বছরের পর বছর ধরে কলকাতার বিভিন্ন প্যান্ডেলে তাঁরা শিল্পকর্ম ফুটিয়ে তুলেছেন। তাঁদের হাতেই প্রাণ পায় পুজো মণ্ডপ। অনেকের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্কও গড়ে উঠেছে বলে জানান ফোরামের সাধারণ সম্পাদক।

যে শিল্পীরা এভাবে প্রতি বছর কলকাতার পুজোগুলিকে নিজেদের ছোঁয়াচে এক অন্য উচ্চতায় তুলে নিয়ে যান, তাঁদের দুর্দিনে কিছুটা ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেয় ‘ফোরাম ফর দুর্গোৎসব'। সেইমতো সোমবার ফোরামের ৭৮ জন সদস্য এনায়েতপুরে যান। দুর্ভোগে থাকা পরিবারগুলিকে শুকনো খাবার, সাবান, ত্রিপল-সহ অন্যান্য সামগ্রী দিয়ে আসেন। আর মনে মনে প্রার্থনা করেছেন দেবী দুর্গার কাছে। শাশ্বত বলেন, ‘আমরা মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করেছি যেন এই মানুষরা আবার নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারেন, নিজেদের কাজ শুরু করতে পারেন এবং এই বছর আবার পুজো মণ্ডপ সাজিয়ে তুলতে পারেন।'

ফোরামে রয়েছে বালিগঞ্জ কালচারাল, বেহালা নতুন দল, ত্রিধারা সম্মিলনী, সন্তোষপুর লেকপল্লি, হাতিবাগান নবীনপল্লি এবং কাশী বোস লেনের মতো পুজো কমিটি রয়েছে। তাছাড়়া আলাদাভাবেও অনেক পুজো কমিটি আমফানে বিধ্বস্ত এলাকা মানুষদের সাহায্য করছে। নাকতলা উদয়ন সংঘ জানিয়েছে, সুন্দরবনের কাছের গ্রামগুলিতে ত্রাণ বণ্টন করা হবে। পুজো কমিটির এক মুখপাত্র বলেন, ‘এই সপ্তাহে গোসাবার বিভিন্ন গ্রামে আমরা জামাকাপড়, খাদ্যশস্য, মুড়ি এবং শুকনো খাবার দেব। তা নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন এবং গ্রামবাসীদের সঙ্গেও কথা বলছি।'

বিশেষ বার্তা

পশ্চিমবঙ্গের ত্রাণ তহবিলে দান করুন

WEST BENGAL STATE EMERGENCY RELIEF FUND

(Part of Chief Minister Relief Fund)

https://wbserf.wb.gov.in/wbserf

A/C No: 628005501339

Bank: ICICI Bank

Branch: Howrah

IFSC Code: ICIC0006280

MICR Code: 700229010

SWIFT Code: ICICINBBCTS

বন্ধ করুন