বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > অবশেষে ১০০% প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালুর পথে পূর্ব রেল, স্বস্তিতে নিত্যযাত্রীরা
অবশেষে ১০০% প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালুর পথে পূর্ব রেল, স্বস্তিতে নিত্যযাত্রীরা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
অবশেষে ১০০% প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালুর পথে পূর্ব রেল, স্বস্তিতে নিত্যযাত্রীরা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

অবশেষে ১০০% প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালুর পথে পূর্ব রেল, স্বস্তিতে নিত্যযাত্রীরা

  • ইতিমধ্যে ১০০ শতাংশ প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালানোর ক্ষেত্রে সবুজ সংকেত দিয়েছে রেলওয়ে বোর্ড।

করোনাভাইরাসের ধাক্কা কাটিয়ে অবশেষে বাংলায় চালু হতে চলেছে সব প্যাসেঞ্জার ট্রেন। পূর্ব রেলের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ১০ দিনের মধ্যে ধাপে ধাপে ১০০ শতাংশ প্যাসেঞ্জার ট্রেন দৌড়ানো শুরু করবে। অর্থাৎ লকডাউনের আগে যতগুলি প্যাসেঞ্জার ট্রেন চলত, তা আবারও চালু করা হবে।

পূর্ব রেল সূত্রে খবর, ইতিমধ্যে ১০০ শতাংশ প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালানোর ক্ষেত্রে সবুজ সংকেত দিয়েছে রেলওয়ে বোর্ড। সেইমতো শিয়ালদহ, হাওড়া, আসানসোল এবং মালদহ ডিভিশনে জোরকদমে প্রস্তুতি চলছে। লকডাউনের আগে ওই শাখাগুলিতে সবমিলিয়ে ৩০০-এর বেশি প্যাসেঞ্জার ট্রেন চলত। আপাতত সেই সংখ্যাটা ১৫০-র নীচে আছে। আগামী ১০ দিনে ধাপে ধাপে বাকি ট্রেনগুলিও চালু করা হবে। তার ফলে আজিমগঞ্জ-কাটোয়া, শিয়ালদহ-লালগোলা, বর্ধমান-রামপুরহাট, আসানসোল-বর্ধমানের মতো বিভিন্ন রুটের যাত্রীদের ভোগান্তি কমবে বলে মনে করছেন রেলের কর্তারা। তবে এখনও পূর্ণ মাত্রায় প্যাসেঞ্জার ট্রেন চালানোর অনুমোদন পায়নি দক্ষিণ-পূর্ব রেলওয়ে।

করোনার জেরে গত বছর মার্চের শেষদিক থেকে দেশজুড়ে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল যাত্রীবাহী রেল পরিষেবা। দীর্ঘ টালবাহানার পর গত ১১ নভেম্বর থেকে রাজ্যে শুরু হয় লোকাল ট্রেন পরিষেবা। তারপর থেকে ধাপে ধাপে বেড়েছে লোকাল ট্রেনের সংখ্যা। ভিড় সামাল দিতে সকাল এবং সন্ধ্যার অফিস টাইমে ১০০ শতাংশ ট্রেন চালানো হতে থাকে। শুধুমাত্র দুপুর এবং রাতের দিকে ট্রেনের সংখ্যা অনেকটাই কম থাকছিল। পরে সেই সংখ্যাটাও বাড়ানো হয়। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে প্যাসেঞ্জার ট্রেনের চাকাও গড়াতে শুরু করে। কিন্তু সেই সংখ্যাটা ৫০ শতাংশেরও কম হওয়ায় জেলার বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভের মাত্রা ক্রমশ বাড়ছিল।  বেশি টাকা খরচ করে বেশি সময় ধরে নিত্যদিন যাতায়াত করতে হচ্ছিল। অবশেষে সুরাহা পেতে চলেছেন তাঁরা।

বন্ধ করুন