বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পুলিশ বলছে পজিটিভ, স্বাস্থ্য দফতর নেগেটিভ, করোনার ‘শর্টসার্কিট’ হল খড়গপুরে
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

পুলিশ বলছে পজিটিভ, স্বাস্থ্য দফতর নেগেটিভ, করোনার ‘শর্টসার্কিট’ হল খড়গপুরে

  • বুধবার সকাল থেকে ২ মেয়েকে আলাদা ঘরে রাখার প্রস্তুতি শুরু করে পরিবার। এর মধ্যে মোবাইল ফোনে ঢোকে স্বাস্থ্য দফতরের SMS. তাতে জানানো হয় সংক্রমিত নন তাঁরা।

ফের করোনা রিপোর্ট ঘিরে বিভ্রান্তি ছড়াল পশ্চিমবঙ্গে। ২ বোনের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে ভিন্নমত থানা ও স্বাস্থ্য দফতর। ঘটনা পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়গপুরের। পুলিশের দাবি খড়গপুরের দুই বোন করোনা পজিটিভ। একথা জেনে যখন তাঁকে আইসোলেশনে রাখার প্রস্তুতি নিচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা, তখনই ফোনে স্বাস্থ্য দফতরের SMS ঢোকে। তাতে জানানো হয়, তাঁদের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ। এই নিয়ে চরম বিভ্রান্তি ছড়ায় পরিবারটিতে। 

জানা গিয়েছে, ওই পরিবারের এক সদস্য সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হন। তার পর পরিবারের বাকি সদস্যদেরও করোনা পরীক্ষা করানো হয়। গত বুধবার খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালে গিয়ে লালারসের নমুনা দিয়ে আসেন তাঁর ২ মেয়ে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা পুলিশের তরফে ফোন করে জানানো হয়, তাঁরা ২ জনেই করোনা আক্রান্ত। উপসর্গ না থাকায় তাঁদের আপাতত হোম আইসোলেশনে থাকতে বলেন পুলিশ আধিকারিক। জানান বুধবার তাঁদের শারীরিক অবস্থার পর্যবেক্ষণে স্বাস্থ্যকর্মীরা যাবেন। 

বুধবার সকাল থেকে ২ মেয়েকে আলাদা ঘরে রাখার প্রস্তুতি শুরু করে পরিবার। এর মধ্যে মোবাইল ফোনে ঢোকে স্বাস্থ্য দফতরের SMS. তাতে জানানো হয় সংক্রমিত নন তাঁরা। সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্য দফতরের হেল্পলাইনে ফোন করেন এক তরুণী। স্বাস্থ্য দফতরের তরফে পালটা প্রশ্নে জানতে চাওয়া হয়, পুলিশ কোনও নথি দেখাতে পেরেছে কি? 

এব্যাপারে স্বাস্থ্য দফতরের তরফে গরমিল শিকার করে নেওয়া হয়েছে। পশ্চিম মেদিনীপুরের এক স্বাস্থ্যকর্তা নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানিয়েছেন, পুলিশের কাছে যে তালিকা রয়েছে সেটিই সঠিক। স্বাস্থ্য ভবনে যে তালিকা গিয়েছে তাতে কিছু গরমিল ধরা পড়েছে। 

 

বন্ধ করুন