বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > কালনায় আত্মঘাতী কৃষক, শুরু শাসক–বিরোধী চাপানউতোর
 আত্মহত্যা।

কালনায় আত্মঘাতী কৃষক, শুরু শাসক–বিরোধী চাপানউতোর

  • রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার জানান, ‘‌রাজ্য সরকার আদৌ কৃষক বন্ধু নয়। রাজ্য সরকার পেট্রোল, ডিজেলের দাম কমায় না। পাম্প চলবে কী করে?‌

ফের কৃষকের আত্মহত্যার খবর সামনে এল। পূর্ব বর্ধমানের কালনায় আত্মঘাতী হয়েছেন কৃষক। গোটা ঘটনাকে কেন্দ্র করে চড়ছে রাজনীতির পারদ। স্থানীয় তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছে বিজেপি। যদিও তৃণমূলের মতে, কী কারণে কৃষক আত্মহত্যা করেছেন, সেটা বিবেচনা করে দেখা দরকার।

জানা যাচ্ছে, মৃত কৃষকের নাম খোকন বাগ। আত্মঘাতী এই কৃষকের বাড়ি কালনার সুলতানপুরে। রান্নাঘর থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মৃত কৃষকের পরিবারের দাবি, কয়েক বিঘা জমিতে ধান ও আলুর চাষ করেছিলেন খোকন। কিন্তু ফলন সেরকম হয়নি। ফলে ব্যাপক আর্থিক অনটনের মধ্যে পড়ে যান তিনি। চাষের জন্য বাইরে থেকেও প্রচুর ধার নিয়েছিলেন। ধার মেটাতে না পেরেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে বাধ্য হন তিনি। যদিও মৃত ওই কৃষকের সম্পর্কে অন্য তথ্য রয়েছে পঞ্চায়েতের কাছে। স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা সুলতানপুর পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রেফাতুল্লা মোল্লা জানান, ‘‌উনি আদৌ চাষবাস করতেন না। ওনার মাছের ব্যবসা ছিল। আসলে বাড়ি করতে গিয়ে তাঁর ধারদেনা হয়েছে। ওনার ৬ কাটা জমি ছিল। কেনার ৭ দিনের মাথায় বন্ধক দিয়ে দেন। ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় সরকারি দিয়েছিলাম। কিন্তু উনি ১০ লাখ টাকার বাড়ি বানাতে গিয়েছিলেন। আর তাতেই তাঁর দেনা হয়ে গিয়েছে।’‌

তবে গোটা ঘটনাটি নিয়ে সরব হয়েছে বিজেপি। রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার জানান, ‘‌রাজ্য সরকার আদৌ কৃষক বন্ধু নয়। রাজ্য সরকার পেট্রোল, ডিজেলের দাম কমায় না। পাম্প চলবে কী করে?‌ রাজ্য সরকার প্রধানমন্ত্রী ফসল যোজনা এখানে লাগু করেনি। এই সরকার আসলে কৃষকদের গিলোটিনে তুলে দিচ্ছে।’‌ এই প্রসঙ্গে অবশ্য কালনা ১ নম্বর ব্লকের বিডিও জানিয়েছেন, মৃতের পরিবারের তরফে কোনও অভিযোগ করা হয়নি। চাষের ক্ষতির কারণেই যে ওই কৃষক আত্মহত্যা করেছেন, তার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষের মতে, কী কারণে ওই ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছেন, সেটা আগে তদন্ত করে দেখতে হবে।

বন্ধ করুন