বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নেই সংরক্ষণের ব্যবস্থা, দাম না পেয়ে রাস্তায় টম্যাটো ছড়িয়ে রেখে গেলেন চাষিরা
শনিবার কামাখ্যাগুড়ি হাটে রাস্তায় ছড়ানো টম্যাটো।
শনিবার কামাখ্যাগুড়ি হাটে রাস্তায় ছড়ানো টম্যাটো।

নেই সংরক্ষণের ব্যবস্থা, দাম না পেয়ে রাস্তায় টম্যাটো ছড়িয়ে রেখে গেলেন চাষিরা

  • টম্যাটোর মতো সহজে পচে যায় এমন সবজি সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই রাজ্যের প্রায় কোথাও। আর টম্যাটোর দাম কয়েক দিনের মধ্যে বৃদ্ধি পাওয়ারও সম্ভাবনা নেই। ফলে সেগুলি বাড়ি বয়ে নিয়ে যাওয়ায় অনর্থক।

দাম নেই টম্যাটোর। হাটে এসে বিক্রি করতে না পারলে সংরক্ষণের ব্যবস্থাও নেই। প্রতিবাদে রাস্তায় বস্তা বস্তা টম্যাটো ফেলে রেখে গেলেন চাষিরা। শনিবার সকালে এই দৃশ্য দেখা যায় আলিপুরদুয়ারের কামাখ্যাগুড়ি হাটে। চাষিদের অভিযোগ, টম্যাটো হাটে নিয়ে যাওয়ার খরচ তুলতে পারছেন না তাঁরা। 

শনিবার যখন প্রথম দফার ভোটগ্রহণ চলছে জঙ্গলমহলে, তখন ঠাঁঠা রোদে দাঁড়িয়েও টম্যাটো বিক্রি করতে পারেননি কামাখ্যাগুড়ি হাটে আসা চাষিরা। হাটে টম্যাটো বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা মন। কেজিতে হিসাব করলে ২ টাকার সামান্য কম। কিন্তু তাও বিক্রি হচ্ছে না টম্যাটো। 

টম্যাটোর মতো সহজে পচে যায় এমন সবজি সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই রাজ্যের প্রায় কোথাও। আর টম্যাটোর দাম কয়েক দিনের মধ্যে বৃদ্ধি পাওয়ারও সম্ভাবনা নেই। ফলে সেগুলি বাড়ি বয়ে নিয়ে যাওয়ায় অনর্থক। তাই বস্তা বস্তা টম্যাটো এদিন রাস্তায় ছড়িয়ে প্রতিবাদ দেখান চাষিরা। 

কৃষিনির্ভর রাজ্যে ভোটের পর ভোট গেলেও চাষিদের জন্য ফসল সংরক্ষণের কোনও পরিকাঠামোই নেই পশ্চিমবঙ্গে। আলু, পেঁয়াজের মতো কয়েকটি ফসলের জন্য তা থাকলেও সহজে পচে যায় এমন সবজির জন্য তা নেই। ফলে প্রতি বছরই মাথার ঘাম পায়ে ফেলে এই পরিস্থিতির শিকার হতে হয় চাষিদের। ইস্তেহারে লেখাই থেকে যায় নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি।

 

বন্ধ করুন