বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দরজা খুলতেই সামনে হাতি! আতঙ্ক চরমে, পুরুলিয়ায় দাপিয়ে বেড়াল গজরাজ
পুরুলিয়ায় লোকালয়ে ঢুকে পড়ল হাতি
পুরুলিয়ায় লোকালয়ে ঢুকে পড়ল হাতি

দরজা খুলতেই সামনে হাতি! আতঙ্ক চরমে, পুরুলিয়ায় দাপিয়ে বেড়াল গজরাজ

এক বাসিন্দা বলেন, মশাল জ্বালিয়ে কোনওরকমে হাতিটাকে আটকানোর চেষ্টা করেছি।

বাঘের আতঙ্ক কিছুটা কেটেছে কুলতলিতে। এবার এই বাংলারই অন্যপ্রান্ত পুরুলিয়ার ঝালদায় হাতির আতঙ্কে ঘুম ছুটেছে বাসিন্দাদের। জঙ্গল থেকে বেরিয়ে একেবারে শহরে ঢুকে পড়ে হাতি। হাতির আতঙ্কে দোকানপাট সব বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তাও ফাঁকা হয়ে যায়। আতঙ্কে ছোটাছুটি শুরু করে দেন বাসিন্দারা। এদিকে বনদফতরের লোকজনও হাতি তাড়াতে চলে আসেন। এদিকে স্থানীয় সূত্রে খবর দলছুট একটি হাতি পাটঝালদা এলাকায় রয়েছে। সেই হাতির ছবি মোবাইলবন্দি করার জন্যও হুড়োহুড়ি পড়ে যায়।

বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সোমবার রাতের অন্ধকারে হাতিটি দড়দা গ্রাম দিয়ে পাটঝালদা হয়ে কোটশিলা থানার লুপুংডি গ্রামের দিকে চলে গিয়েছে। হাতিটি যাতে এলাকায় তাণ্ডব চালাতে না পারে সে কারণে বনদফতরের লোকজনও এলাকা ঘিরে রেখেছে। তবে এতসব কিছুর পরেও বাসিন্দাদের আতঙ্ক যাচ্ছে না। যেকোনও সময় হাতিটি এলাকায় তাণ্ডব শুরু করে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন গ্রামবাসীরা। 

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, আমরা ভয়ে ঘরের মধ্যে লুকিয়ে ছিলাম। আমাদের জমির ফসল নষ্ট করে দিয়েছে। বনদফতরের লোকজন এসেছিল। আমাদের ক্ষতিপূরণ দিলে ভালো হয়। অপর এক বাসিন্দা বলেন, মশাল জ্বালিয়ে কোনওরকমে হাতিটাকে আটকানোর চেষ্টা করেছি। অন্য এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, রাত ৮টা নাগাদ হাতিটা এসেছিল। আমরা আতঙ্কে ঘরে লুকিয়ে ছিলাম। হাতিটা আখ, ধান সব খেয়ে চলে গিয়েছে। এই রাস্তা দিয়ে প্রতিবছর হাতি আসে। এলাকায় লাইট দিলে খুব ভালো হয়। 

 

বন্ধ করুন