বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > TMC: ‘‌‌লড়াইটা উন্নয়ন বনাম কুৎসার’‌, জিটিএ–র প্রার্থী ঘোষণা করে জানালেন অরূপ
অরূপ বিশ্বাস

TMC: ‘‌‌লড়াইটা উন্নয়ন বনাম কুৎসার’‌, জিটিএ–র প্রার্থী ঘোষণা করে জানালেন অরূপ

  • গোর্খা টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের নির্বাচনে ৪৫টি আসন রয়েছে। ইতিমধ্যেই অনিত থাপার ভারতীয় গোর্খা প্রজাতান্ত্রিক মোর্চা ৪৫টি আসনে প্রার্থী দেওয়ার কথা জানিয়ে দিয়েছে।

জিটিএ নির্বাচনে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করল তৃণমূল। এবারের নির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী হচ্ছেন বিনয় তামাং। ১০টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে তৃণমূল। সেই ১০টি আসনের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলেন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। একই সঙ্গে শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদ ও গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতেও তৃণমূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

এদিন প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস জানান, ‘‌বিরোধীরা তো এখানে শুধু কুৎসা করে। লড়াইটা উন্নয়ন বনাম কুৎসার লড়াই। প্রত্যেক মানুষই উন্নয়ন চান। মানুষ আস্থা রাখেন, উন্নয়নের কাজ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়া আর কেউ করতে পারবে না। তাই নির্বাচনে মানুষ আমাদের পাশে থাকবেন বলে আশা রাখি।’‌ একইসঙ্গে তিনি জানান, ‘‌গত ১৫ দিন ধরেই আমরা দলের ঘরোয়া বৈঠকের কাজ শেষ করেছি। প্রার্থী তালিকা তৈরির কাজ শেষ করেছি। তৃণমূল কংগ্রেস সারা বছর ধরেই মানুষের পাশে থেকে কাজ করে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের ডালি মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছি। যদি কেউ বাকি থাকে, তাহলে তাঁদের কাছেও সেই উন্নয়ন পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করব।’‌ ইতিমধ্যে জিটিএ নির্বাচনের বিরোধিতায় অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা নেতা বিমল গুরুং। এই প্রসঙ্গে অবশ্য অরূপবাবু জানান, ‘‌গত ১১ বছর ধরে যেভাবে পাহাড়ে উন্নয়নের কাজ করে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেভাবে তিনি পাহাড়ের মানুষের জন্য ভাবেন, তাতে আমি সকলকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়ন যজ্ঞে সামিল হওয়ার আহ্বান জানান।’‌ তবে জিটিএ নির্বাচনে তৃণমূল কারো সঙ্গে জোট করবে কিনা, সেই বিষয়টি অবশ্য স্পষ্ট করেননি অরূপবাবু।

এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যের মন্ত্রী গৌতম দেব ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন শান্তা ছেত্রী, এলবি রাই, পাপিয়া ঘোষ, গৌতম দেব, প্রতুল চক্রবর্তী, রঞ্জন সরকার প্রমুখ ব্যক্তিত্বরা। উল্লেখ্য গোর্খা টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের নির্বাচনে ৪৫টি আসন রয়েছে। ইতিমধ্যেই অনিত থাপার ভারতীয় গোর্খা প্রজাতান্ত্রিক মোর্চা ৪৫টি আসনে প্রার্থী দেওয়ার কথা জানিয়ে দিয়েছে। পাশাপাশি শিলিগুড়ি মহুকুমা পরিষদের ৯টি আসনে লড়াই হচ্ছে। ৪টি গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির মাটিগাড়া, নকশালবাড়ি, ফাঁসিদেওয়া, খড়িবাড়ি পঞ্চায়েত সমিতির জন্য ৬৬টি আসনে, ২২টি গ্রাম পঞ্চায়েতের জন্য ৪৬২টি আসনে লড়াই হবে। প্রত্যেকটি আসনেই প্রার্থী দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস।

বন্ধ করুন