বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Durgapur: সাতসকালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! পরিত্যক্ত তেলের ড্রামে আগুন লেগে আতঙ্ক এলাকায়

Durgapur: সাতসকালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! পরিত্যক্ত তেলের ড্রামে আগুন লেগে আতঙ্ক এলাকায়

আগুনে জ্বলছে তেলের ড্রাম। নিজস্ব ছবি।

ওই এলাকায় ডিজেল, পেট্রোলের ড্রাম, প্লাস্টিক মজুত রাখা হয়। প্লাস্টিকগুলি পুড়িয়ে সেগুলি বিক্রি করেন কয়েকজন স্থানীয়। বেশ কয়েকদিন ধরেই সেখানে আগুন জ্বলছিল। আজ সকালে আচমকা আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনায় বহু ড্রামে বিস্ফোরণ ঘটে। দাউদাউ করে জ্বলে উঠে আগুনের লেলিহান শিখা। ধোঁয়ায় ভরে যায় গোটা এলাকা।

সাতসকালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটল দুর্গাপুরের কোক ওভেন থানা এলাকায়। রাস্তার পাশে মজুদ থাকা তেলের ড্রামে আগুন লাগে। দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে আগুন। এই ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে তড়িঘড়ি সেখানে পৌঁছন দমকল কর্মীরা। কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। আজ বুধবার সকালে কোক ওভেন থানা এলাকার সিনেমা হল রোড় সংলগ্ন রাস্তার ধারে মজুত প্লাটিক, পরিত্যক্ত তেলের ড্রামে আগুন লাগে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় ডিজেল, পেট্রোলের ড্রাম, প্লাস্টিক মজুত রাখা হয়। প্লাস্টিকগুলি পুড়িয়ে সেগুলি বিক্রি করেন কয়েকজন স্থানীয়। বেশ কয়েকদিন ধরেই সেখানে আগুন জ্বলছিল। আজ সকালে আচমকা আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনায় বহু ড্রামে বিস্ফোরণ ঘটে। দাউদাউ করে জ্বলে উঠে আগুনের লেলিহান শিখা। ধোঁয়ায় ভরে যায় গোটা এলাকা। তার ঠিক পাশেই রয়েছে বেশ কয়েকটি বাড়ি। সেখানেও আগুন ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। স্থানীয়রা প্রথমে আগুন নিয়ন্ত্রণ আনার চেষ্টা করলে ব্যর্থ হন। পরে দমকলে খবর দেওয়া হলে প্রায় দু'ঘণ্টার চেষ্টায় দমকলের একটি ইঞ্জিন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

স্থানীয় বাসিন্দার অভিযোগ, প্লাস্টিক, তেলের ড্রামের মতো জিনিস সেখানে বেআইনি ভাবে মজুত রাখা হচ্ছে। এর আগে সেখানকার মালিক বসতি থেকে কিছুটা দূরে এসব মজুত রাখতেন। এখন বসতি এলাকায় তারা এসব মজুত রাখছে এবং আগুন ধরাচ্ছে। এমনকি কার্বন রাখা হচ্ছে, যা হাওয়ায় বাড়িতে গিয়ে পড়ছে। তাছাড়া, এই সমস্ত জিনিস মজুত রাখার ফলে রাস্তা দিয়ে যাতায়াতেও অসুবিধা হচ্ছে। এ নিয়ে স্থানীয় বিধায়কের কাছে অভিযোগ জানানো হয়েছিল। কিন্তু, তারপরেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তাঁদের বক্তব্য, এই গ্রামে ৩ হাজারের বেশি মানুষ থাকেন। আগুন ছড়িয়ে পড়লে আশেপাশের বহু বাড়ি পুড়ে যাওয়ার আশঙ্কা ছিল।

বন্ধ করুন
Live Score