বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সুন্দরবনে রয়েছে কালো বাঘ, টেনে নিয়ে গিয়েছে মৎস্যজীবীকে, দাবি স্থানীয়দের
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

সুন্দরবনে রয়েছে কালো বাঘ, টেনে নিয়ে গিয়েছে মৎস্যজীবীকে, দাবি স্থানীয়দের

  • তাঁদের দাবি, কালো রংয়ের ওই বাঘ সাধারণ রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের থেকে আকারে অনেক বড়।

সুন্দরবনে দেখা মিলল কালো বাঘের। অন্তত এমনটাই দাবি স্থানীয় কিছু মৎস্যজীবীর। সুন্দরবনের কুমিরমারির জঙ্গলে কালো রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার দেখেছেন বলে দাবি তাঁদের। মৎস্যজীবীদের দাবি খতিয়ে দেখতে ময়দানে নেমেছে বনদফতর।

স্থানীয় কিছু মৎস্যজীবীর দাবি, রবিবার গোসাবার কুমিরমারির জঙ্গলে কয়েকজন কাঁকড়া ধরতে যান। তখন একজনের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে একটি বাঘ। ওই মৎস্যজীবীকে বাঘটি টেনে নিয়ে জঙ্গলে চলে যায়। সঙ্গীকে বাঁচাতে না পারলেও বাঘের রং ও আকার দেখে হতবাক হয়ে যান মৎস্যজীবীরা। তাঁদের দাবি, কালো রংয়ের ওই বাঘ সাধারণ রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের থেকে আকারে অনেক বড়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছন আরও কয়েকজন মৎস্যজীবী। তাঁরা বাঘ দেখতে না পেলেও জানিয়েছেন, বাঘটির পায়ের ছাপ সাধারণ বাঘের থেকে বড়।

তবে মৎস্যজীবীদের এই দাবি মানতে পারছেন না বনদফতরের কর্তারা। সুন্দরবন ব্যঘ্র প্রকল্পের আধিকারিক অনিন্দ্য গুহঠাকুরতা বলেন, ‘কালো বাঘের যে গল্প গ্রামগুলিতে শোনা যাচ্ছে তা গুজব বলেই মনে হয়। কালো বাঘের সন্ধান কস্মিনকালে সুন্দরবনে মেলেনি। সুন্দরবনের বিভিন্ন জায়গায় বাঘের গতিবিধির ওপর নজরদারির জন্য ট্র্যাপ ক্যামেরা বসানো রয়েছে। কালো বাঘ থাকলে কোথাও না কোথাও তো দেখা যেত।’

তবে জীববিজ্ঞানীদের মতে কালো রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার জন্ম নেওয়া অসম্ভব কিছু নয়। জিনের রকমফেরে তা বিরল হলেও সম্ভব। মাস খানেক আগে আলিপুরদুয়ারের বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের জয়ন্তীতে এক জোড়া কালো চিতাবাঘ দেখা গিয়েছিল। গ্রামবাসীরা কালো বাঘ দেখতে পাওয়ার দাবি করায় কুমিরমারির জঙ্গলে নজরদারি বাড়িয়েছে বনদফতর।



বন্ধ করুন