বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছাড়ায় বিপাকে অনুগামীরা, ৩ ভাগ পূর্ব মেদিনীপুরের ঘাসফুল শিবির
শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি
শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি

শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছাড়ায় বিপাকে অনুগামীরা, ৩ ভাগ পূর্ব মেদিনীপুরের ঘাসফুল শিবির

  • জেলায় শাসকদলের নেতাকর্মীদের এই ‘‌অঘোষিত’‌ দলগুলির প্রথম রয়েছেন তাঁরা যাঁরা গত কয়েকমাস ধরে বলে চলেছেন, ‘‌দাদা তুমি এগিয়ে চলো, আমরা তোমার সাথে আছি।’‌ এঁরা হলেন শুভেন্দু অধিকারীর বিশ্বস্ত সৈনিক।

‌মন্ত্রিত্ব ছাড়লেও শনিবার রাত পর্যন্ত দলের হাত ছাড়েননি শুভেন্দু অধিকারী। তিনি এখনও নন্দীগ্রামের তৃণমূল বিধায়ক। কিন্তু পূর্ব মেদিনীপুরের ‘‌মুক্তিসূর্য’‌র মন্ত্রিত্ব ছাড়ার জেরে এবার কিছুটা বিপাকে পড়েছেন ‘‌দাদার অনুগামী’‌রাও। রীতিমতো তিনটি ভাগে ভাগ হয়ে গিয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তৃণমূল শিবির।

জেলায় শাসকদলের নেতাকর্মীদের এই ‘‌অঘোষিত’‌ দলগুলির প্রথম রয়েছেন তাঁরা যাঁরা গত কয়েকমাস ধরে বলে চলেছেন, ‘‌দাদা তুমি এগিয়ে চলো, আমরা তোমার সাথে আছি।’‌ এঁরা হলেন শুভেন্দু অধিকারীর বিশ্বস্ত সৈনিক। তাঁদের মতে, যাই হোক না কেন তাঁরা ‘‌দাদা’‌র সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারবেন না। যদি প্রয়োজন পরে তা হলে তাঁরা শিবিরও বদল করতে রাজি কিন্তু তাঁদের দাদার সঙ্গ তাঁরা ছাড়বেন না। এমনই একজন হলেন মহিষাদলের অমৃতবেড়িয়ার তৃণমূল নেতা ও স্থানীয় পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান রঘুনাথ পণ্ডা। তাঁর মতে, ‘‌শুভেন্দু যেখানে আমরাও সেখানে। তাঁর সিদ্ধান্তের সঙ্গে আছি।’‌ একই বক্তব্য হলদিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের একাধিক জেলা পরিষদ সদস্যেরও।

এর পরের ভাগে রয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর বিরোধী শিবির। তাঁদের অনেকেই এদিনের অপেক্ষায় ছিলেন বলে দলীয় সূত্রে খবর। শুভেন্দু অধিকারীর মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগে খুশি অনেকেই। তাঁদের মধ্যে যেমন রয়েছেন নন্দীগ্রাম আন্দোলনের আর এক নেতা শেখ সুফিয়ান, তেমনই রয়েছেন রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি। দিনের পর দিন বাড়তে থাকা জল্পনার কিছুটা অবসান ঘটলেও অনেকেই তাঁদের অনেকেই ভাবছেন শুভেন্দুর দলবদলের কথা। মন্ত্রিত্বে ইস্তফা দেওয়ার পাশাপাশি হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যানের পদ ছেড়েছেন শুভেন্দু। দলীয় সূত্রে খবর, এতে খুশি হয়েছেন হলদিয়ার প্রাক্তন পুরপ্রধান দেবপ্রসাদ মণ্ডল।

আর শেষ ভাগটিতেও রয়েছেন শুভেন্দু অনুগামীরা। তাঁরাও শুভেন্দুর অনুরাগী। কিন্তু মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর থেকে তাঁরা অনেকটাই সাবধান। এই দলে রয়েছেন নন্দীগ্রামের আবু তাহের। কারণ, যদি শুভেন্দু তৃণমূল ছাড়েন, তবে তাঁদের অস্তিত্ব নিয়েও টানাপোড়েন শুরু হতে পারে। তাই নিজেদের যতটা সম্ভব সুরক্ষা বলয়ে রেখেছেন তাঁরা। আবু তাহেরের এক ঘনিষ্ঠ বলছিলেন, ‌‘‌শুভেন্দু এর পরে কী পদক্ষেপ করেন তার দিকে আবু তাহের যেমন নজর রেখেছেন তেমনই তৃণমল রাজ্য নেতৃত্বের সিদ্ধান্তের দিকেও নজর রেখেছেন তিনি। সব দিকটা দেখেই নিজের অবস্থান ঠিক করবেন তাহেরের মতো তৃণমূল নেতাকর্মীরা।’‌

এদিকে, শুভেন্দু যদি তৃণমূল ছাড়ে তবে জেলার কোন বিধানসভা কেন্দ্র কোন দলের দখলে যাবে তা নিয়ে ইতিমধ্যে আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় রয়েছে ১৬টি বিধানসভা কেন্দ্র— নন্দীগ্রাম, মহিষাদল, এগরা, খেজুরি, হলদিয়া, তমলুক, নন্দকুমার, চণ্ডীপুর, ভগবানপুর, পূর্ব পাঁশকুড়া, পশ্চিম পাঁশকুড়া, ময়না, রামনগর, পটাশপুর, উত্তর কাঁথি ও দক্ষিণ কাঁথি। শুভেন্দু অনুরাগী জেলা তৃণমূলের সম্পাদকের দাবি, ‘‌শুভেন্দু একাই জেলার সমস্ত এলাকায় জয় ছিনিয়ে নিতে পারবেন।’‌

বন্ধ করুন