বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > এবার আম আদমি পার্টিতে লক্ষ্মণ শেঠ!‌ কেন এমন সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন?
সিপিআইএমের প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ।

এবার আম আদমি পার্টিতে লক্ষ্মণ শেঠ!‌ কেন এমন সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন?

  • সিপিআইএম থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর ভারত নির্মাণ পার্টি গঠন করেন লক্ষ্ণণ শেঠ। পরে যোগ দেন বিজেপিতে। গত লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের টিকিটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নন্দীগ্রামে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয়। বিজেপিতে যোগদান করলেও বেশিদিন সংসার করতে পারেনি।

বেশ কয়েকটি প্রথমসারির রাজনৈতিক দলেই তাঁর ঘোরা হয়ে গিয়েছে। সিপিআইএম থেকে গিয়েছিলেন বিজেপিতে। সেখান থেকে গিয়েছিলেন কংগ্রেসে। তারপর আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে ঢোকার। সেখানে সাড়া না পেয়ে এবার আম আদমি পার্টিতে ঢুকতে চান তিনি। তেমনই ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন তিনি। হ্যাঁ, তিনি একদা সিপিআইএমের প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ।

বিষয়টি ঠিক কী ঘটেছে?‌ তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সাড়া পাচ্ছেন একদা পূর্ব মেদিনীপুরের দোর্দণ্ডপ্রতাপ সিপিআইএম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ। তিনি ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন ঘাসফুল শিবিরে যোগ দেওয়ার। কিন্তু সেখানে না মেলায় এবার আম আদমি পার্টিতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন প্রাক্তন সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠ। বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে তমলুকের প্রাক্তন সাংসদ দাবি করেন, তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার জন্য একাধিকবার আবেদন করলেও সাড়া মেলেনি। তাই পুরসভা, পঞ্চায়েত এবং লোকসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল তাঁকে না নিলে তিনি আম আদমি পার্টিতে যোগ দেবেন।

ঠিক কী বলেছেন প্রাক্তন সিপিআইএম সাংসদ?‌ এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে লক্ষ্মণ শেঠ বলেন, ‘‌আমার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে চাই। কেউ সবসময় শত্রু হয়ে থাকে না। তাই তৃণমূলে যোগদানের আবেদন জানিয়েছি। এখনও সম্মতি মেলেনি। তৃণমূলই পারে রাজ্যের উন্নয়ন ঘটাতে। হলদিয়া–সহ জেলাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলাম। কিন্তু রাজনৈতিক কারণে তা অসমাপ্ত হয়ে থাকে। সেই কাজ করতে চাই। আগামী পুরসভা, পঞ্চায়েত ও লোকসভা নির্বাচনের আগে যদি তৃণমূল আমায় দলে না নেয়, তাহলে আপের সঙ্গে যুক্ত হতে হবে। আমি মনে করি রাজনীতির মধ্য দিয়ে মানুষের উন্নয়ন করা ও তাদের পাশে থাকা সম্ভব। তাই আমার শেষ জীবনে রাজনীতি করে মানুষের পাশে থাকতে চাই।’‌

উল্লেখ্য, সিপিআইএম থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর ভারত নির্মাণ পার্টি গঠন করেন লক্ষ্ণণ শেঠ। পরে যোগ দেন বিজেপিতে। গত লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের টিকিটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন লক্ষ্ণণ শেঠ। নন্দীগ্রামে জমি অধিগ্রহণ নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয় সিপিআইএম সাংসদ লক্ষ্মণ শেঠের। বিজেপিতে যোগদান করলেও বেশিদিন সংসার করতে পারেনি। পরে বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগদান করেন। প্রার্থীও হয়েছিলেন। কিন্তু হেরেছিলেন। তার পর থেকে সেইভাবে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নন তিনি। এখন তিনি তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করার আর্জি জানিয়েছেন।

বন্ধ করুন