বুধবার বিশ্বভারতীতে সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তকে ঘেরাও করে এসএফআই সমর্থকদের বিক্ষোভ (PTI)
বুধবার বিশ্বভারতীতে সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তকে ঘেরাও করে এসএফআই সমর্থকদের বিক্ষোভ (PTI)

স্বপন দাশগুপ্তকে ঘেরাওমুক্ত করতে ডিজিকে ফোন রাজ্যপালের

  • এদিন দুপুরে বিশ্বভারতীতে ঢুকতেই শুরু হয় এসএফআইয়ের বিক্ষোভ। বিক্ষোভের জেরে লিপিকা সভাগার থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় আলোচনা সভা।

বিশ্বভারতীতে সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তকে ঘেরাওয়ের ঘটনায় ফের একবার রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে সরব বিজেপি। একই সুর রাজ্যপালের গলাতেও। দীর্ঘক্ষণ ঘেরাও থাকার পর বুধবার রাত ৯টা নাগাদ বিশ্বভারতী থেকে বেরোন স্বপনবাবু। এই ঘটনা নিয়ে শাসক তৃণমূল ও বামেদের বিঁধেছে বিজেপি।

এদিন দুপুরে বিশ্বভারতীতে ঢুকতেই শুরু হয় এসএফআইয়ের বিক্ষোভ। বিক্ষোভের জেরে লিপিকা সভাগার থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় আলোচনা সভা। তাতেও বিক্ষোভ থামেনি। সন্ধ্যায় সভা শেষ হলে শুরু হয় ঘেরাও। রাত ৯টা পর্যন্ত স্বপনবাবু ও বিশ্বভারতীর উপাচার্যকে ঘেরাও করে রাখেন SFI সমর্থকরা।

এরই মধ্যে টুইট করে রাজ্যপাল জানান, স্বপন দাশগুপ্ত ঘেরাওমুক্ত করতে রাজ্য পুলিশের ডিজির সঙ্গে কথা বলেছি। দ্রুত উপযুক্ত পদক্ষেপ করতে নির্দেশ দিয়েছি তাঁকে। এই নৈরাজ্য ভাবায়।


বিজেপির তরফেও এই ঘটনার নিন্দা করা হয়েছে। জানানো হয়েছে, বিশ্বভারতীতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে আলোচনাসভায় অংশগ্রহণ করতে গিয়েছিলেন স্বপনবাবু। বামপন্থীরাই তো আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধানের কথা বলেন। তাহলে এখানে স্বপনবাবুকে বাধা দেওয়া হল কেন? বিজেপির দাবি, যুক্তি পছন্দ না হলেই কণ্ঠরোধে তৎপর হয়ে ওঠে বামপন্থীরা।

বন্ধ করুন