বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‌ডিজিটাল ক্লাস চালু, স্বাস্থ্যবিধিতে জোর, শিক্ষারত্ন পেলেন হলদিয়ার শিক্ষিকা
‌ডিজিটাল ক্লাস চালু, স্বাস্থ্যবিধিতে জোর, শিক্ষারত্ন পেলেন হলদিয়ার শিক্ষিকা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
‌ডিজিটাল ক্লাস চালু, স্বাস্থ্যবিধিতে জোর, শিক্ষারত্ন পেলেন হলদিয়ার শিক্ষিকা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

‌ডিজিটাল ক্লাস চালু, স্বাস্থ্যবিধিতে জোর, শিক্ষারত্ন পেলেন হলদিয়ার শিক্ষিকা

প্লাস্টিক বর্জন করা, খাওয়ার আগে ও পরে হাত ধোয়ার মতো অভ্যাস তিনি পড়ুয়াদের মধ্যে করিয়ে দিয়েছিলেন।

শিক্ষার মানোন্নয়ন, পরিবেশ পরিচ্ছন্নতা ও স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য নিরলস কাজ করেছেন তিনি। এবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলা থেকে শিক্ষারত্ন সম্মান পেলেন হলদিয়ার দেভোগ পূর্ব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ইন্দ্রাণী প্রধান মণ্ডল।

করোনা মহামারীর মধ্যেও দেভোগ পূর্ব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডিজিটাল ক্লাস চালু করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন ইন্দ্রাণীদেবী। এর ফলে পড়ুয়াদের পড়াশোনা এই কঠিন পরিস্থিতিতেও থেমে থাকেনি। পাশাপাশি প্রধান শিক্ষিকার দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে স্কুলের পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার ক্ষেত্রে পড়ুয়াদের সচেতন করে তুলেছিলেন তিনি। প্লাস্টিক বর্জন করা, খাওয়ার আগে ও পরে হাত ধোয়ার মতো অভ্যাস তিনি পড়ুয়াদের মধ্যে করিয়ে দিয়েছিলেন। গত শনিবার কমিশনার অফ স্কুল এডুকেশন আনন্দ নারায়ণ বিশ্বাস ইন্দ্রাণীদেবীর এই পুরস্কার প্রাপ্তির খবর জানান। এই বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাকেও চিঠি পাঠানো হয়।

এর আগে ২০১৭ সালে ইন্দ্রাণীদেবীর এই স্কুল নির্মল বিদ্যালয় পুরস্কার অর্জন করেছে। এর পরের বছর বেস্ট পারফরমিং স্কুল হিসাবেও এই স্কুল সম্মান অর্জন করে। ২০১৯ সালে পায় শিশু মিত্র পুরস্কার। তবে যার তত্বাবধানে এই এতগুলি সম্মান অর্জন, সেই প্রধান শিক্ষিকাকেই এবার শিক্ষারত্ন পুরস্কার পেলেন। পুরস্কার প্রাপ্তির কথা শুনে উচ্ছ্বসিত প্রধান শিক্ষিকা জানান, ‘‌এই পুরস্কার প্রাপ্তির আনন্দ সহ -শিক্ষকদের সঙ্গে ভাগ করে নেব। সকলের চেষ্টাতেই স্কুলটিকে শৃঙ্খলাবদ্ধ ও সুন্দর করে তুলতে পেরেছি। তাই এই সম্মান প্রাপ্তি খুবই আনন্দের বিষয়।’‌

বন্ধ করুন