বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিকট শব্দে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল গোটা গ্রামে!‌ জেগে রইল গ্রামবাসীরা, কেন?
অন্ধকারে ঢাকল গোটা শালবনি।
অন্ধকারে ঢাকল গোটা শালবনি।

বিকট শব্দে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল গোটা গ্রামে!‌ জেগে রইল গ্রামবাসীরা, কেন?

  • আর তাতেই শনিবার সারারাত জেগে থাকল শালবনির কাশীজোড়ার বেঁউচা গ্রামের মানুষজন।

বিকট শব্দে কেঁপে উঠল পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনি। রাতের অন্ধকারে কিসের শব্দ বোঝা না গেলেও বড় কিছু ঘটেছে বলেই মানুষজন মনে করেছিলেন। কারণ এই বিকট শব্দের পর গোটা গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তবে একটা আলোর ঝলকানি দেখা দিয়েছিল। আর তাতেই তৈরি হয় আতঙ্ক। অনেকে মনে করতে শুরু করেন বিমান মাটিতে আছড়ে পড়েছে। আর তাতেই শনিবার সারারাত জেগে থাকল শালবনির কাশীজোড়ার বেঁউচা গ্রামের মানুষজন।

ঠিক কী ঘটেছিল শালবনিতে?‌ রবিবার সকালে পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বিমান ভেঙে পড়ার খবর গুজব। কিন্তু গ্রামবাসীরা যে বিমানের আওয়াজ পেয়েছিল সেটা সঠিক। কলাইকুন্ডা এয়ারবেসের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, গ্রাউন্ড লেভেলের কাছাকাছি একটি বিমান চলে আসে। তাতেই এই ধরনের বিকট আওয়াজ শোনা যেতে পারে। তবে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী যাঁরা এই বিকট শব্দ শুনেছিলেন তাঁরা বলেন, ‘‌রাত ১০টা বাজে। ঘরে সবাই শুয়ে ছিলাম। হঠাৎ একটি বিমান আছড়ে পড়ার মতো বিকট শব্দ শোনা যায়। তারপরই বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সব অন্ধকার হয়ে গেল। মনে হল মাথার উপর দিয়ে বিকট শব্দে বিমান চলে গেল। রাত বলে বুঝতে পারিনি। সকলে আতঙ্কিত হয়ে পড়ি।’

এই বিকট শব্দে তৈরি হওয়া আতঙ্কে গ্রামের মহিলারাও ঘর ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে আসেন। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, রাতে বায়ুসেনার আধিকারিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। বিমান ভেঙে পড়ার কোনও খবর মেলেনি। কলাইকুন্ডা এয়ারবেসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, গ্রাউন্ড লেভেলের খুব কাছাকাছি একটি বিমান চলে এসেছিল। তাই বিকট আওয়াজ শোনা গিয়েছে।

বন্ধ করুন