বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'মেলেনি' মার্কশিট, কীর্ণাহারে স্কুলের সামনে চলল বিক্ষোভ
'মেলেনি' মার্কশিট, কীর্ণাহারে স্কুলের সামনে চলল বিক্ষোভ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
'মেলেনি' মার্কশিট, কীর্ণাহারে স্কুলের সামনে চলল বিক্ষোভ। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

'মেলেনি' মার্কশিট, কীর্ণাহারে স্কুলের সামনে চলল বিক্ষোভ

  • ছাত্রদের অভিযোগ, স্কুলে রেজাল্ট নিতে গেলে ছাত্রদের মারধর করা হয়। তাদের হাতে মার্কশিট ও অ্যাডমিট কার্ড কিছুই পৌঁছায় না।

‌মার্কশিট না পেয়ে স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একরাশ অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখালেন ছাত্ররা। তাঁদের অভিযোগ, উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার আগে ফর্ম পূরণ করার ব্যাপারে স্কুলের তরফে কোনওকিছু জানানো হয়নি। মার্কশিট নিতে গেলে তাঁদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। যদি যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছোয় পুলিশ বাহিনী।

ছাত্র বিক্ষোভের ঘটনাটি ঘটেছে কীর্ণাহারের শিবচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে। স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিশেষ কোনও কাজে বিদ্যালয় থেকে বেরিয়ে যেতে গেলে ছাত্ররা প্রধান শিক্ষককে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান। তাঁদের অভিযোগ, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে ফর্ম ফিল-আপ করার জন্য স্কুলের তরফ থেকে তাদের জানানো হয়নি। পাশাপাশি কয়েকজন ছাত্র ফর্ম ফিল-আপের কথা জানতে পারলে তার পরের দিন স্কুলে গিয়ে ফর্ম ফিল-আপের জন্য টাকা জমা দেন। ছাত্রদের অভিযোগ, স্কুলে রেজাল্ট নিতে গেলে ছাত্রদের মারধর করা হয়। তাঁদের হাতে মার্কশিট ও অ্যাডমিট কার্ড কিছুই পৌঁছায় না।

যদিও ছাত্রদের করা অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক নীলকমল বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানান, 'ফর্ম ফিল-আপ করানোর আগে স্কুলের তরফে মাইকিং করা হয়েছিল। ফর্ম ফিল-আপ যদি না করানো হয়, তাহলে ৩০০ জন ছেলে ফর্ম ফিল-আপ কী করে করলেন? আসলে ওরা ফর্ম ফিল-আপ করতে আসেনি। তাই ওদের রেজাল্টও আসেনি। এখন ওঁরা সাজিয়ে এসব কথা বলছেন। প্রতি বছরই দু'চার জন ছাত্র পরীক্ষা দেয় না। এবছর ভালো প্রিপারেশন হয়নি বলে দু'চার প্রতি বছরই পরীক্ষা দেন না। ওঁদেরও ফর্ম ফিল-আপ করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু ওঁরা আসেননি। আর ওদের কোনও মারধর করা হয়নি।'

বন্ধ করুন