বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > স্ত্রীকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে খুন, রক্তারক্তি অবস্থায় মালদহ থানায় হাজির স্বামী
স্ত্রীকে কুপিয়ে খুন মালদহে।

স্ত্রীকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে খুন, রক্তারক্তি অবস্থায় মালদহ থানায় হাজির স্বামী

  • রক্তাক্ত অবস্থায় গৃহবধূকে নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে স্থানান্তরিত করা হয়‌ মালদহ মেডিকেল কলেজে। সেখানে চিকিৎসা শুরু হলেও গৃহবধূ মীরাকে বাঁচানো যায়নি। চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। গ্রেফতার হওয়া স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

স্ত্রীকে খুন করে থানায় হাজির হল স্বামী। সারা গায়ে রক্তের ছিটে। পোশাক রক্তে ভেসে যাচ্ছে। আর এই দৃশ্য দেখে শিউরে উঠলেন স্বয়ং ডিউটি অফিসার। প্রথমে ভেবেছিলেন ওই ব্যক্তিকে কেউ মেরেছে। তাই রক্তাক্ত অবস্থায় থানায় হাজির হয়েছে সে। কিন্তু জিজ্ঞাসা করতেই চোখ কপালে উঠল পুলিশের। স্ত্রীকে খুন করে থানায় হাজির হওয়ার ঘটনা নজিরবিহীন। যা ঘটল মালদহে।

ঠিক কী ঘটেছে মালদহে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, স্বামী–স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি লেগে থাকত। এই অশান্তি থেকে মুক্তি পেতে স্ত্রীকে কুপিয়ে খুন করল স্বামী। মালদহে স্ত্রীকে খুন করে সটান থানায় আত্মসমর্পণ করে স্বামী। চাঁচলের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। মালদহের চাঁচল থানার কান্ডারণ এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। ধৃতের স্ত্রীকে আহত অবস্থায় মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে মৃত‍ বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। অভিযুক্ত স্বামী রাজেশ প্রামাণিক চাঁচল থানায় আত্মসমর্পণ করে।

কী তথ্য পেয়েছে পুলিশ?‌ পুলিশ সূত্রে খবর, মৃত গৃহবধূর নাম মীরা সিং প্রামানিক (৪২)। বাড়ি চাঁচলের কান্ডারনে। স্বামী–স্ত্রীর অশান্তি সংসারে লেগেই থাকত। বুধবারও তাঁদের মধ্যে সাংসারিক অভাব–অনটন নিয়ে অশান্তি চরমে ওঠে। তখনই মেজাজ হারিয়ে ধারাল চাকু দিয়ে স্ত্রীকে কোপাতে থাকে স্বামী রাজেশ। তাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিযে পড়েন স্ত্রী মীরা।

তারপর কী ঘটল সেখানে? পরিবার সূত্রে খবর, রক্তাক্ত অবস্থায় গৃহবধূকে নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে স্থানান্তরিত করা হয়‌ মালদহ মেডিকেল কলেজে। সেখানে চিকিৎসা শুরু হলেও গৃহবধূ মীরাকে বাঁচানো যায়নি। চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। গ্রেফতার হওয়া স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

বন্ধ করুন