বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > প্রকাশ্য রাস্তায় স্ত্রীর প্রেমিককে কুপিয়ে খুন করল স্বামী, রণক্ষেত্র অশোকনগর
প্রকাশ্য রাস্তায় স্ত্রীর প্রেমিককে কুপিয়ে খুন করল স্বামী, রণক্ষেত্র অশোকনগর। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

প্রকাশ্য রাস্তায় স্ত্রীর প্রেমিককে কুপিয়ে খুন করল স্বামী, রণক্ষেত্র অশোকনগর

অভিযুক্ত অপু কাহারের স্ত্রীর সঙ্গে দrর্ঘদিন ধরেই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল মিলনের।

প্রকাশ্য রাস্তায় স্ত্রী'র প্রেমিককে কুপিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। শুক্রবার সকালে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে অশোকনগরের নটনি বাজারে। ঘটনা ঘিরে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা এলাকা। অভিযুক্তকে ধরে বাঁশ, লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করে উত্তেজিত জনতা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। নামানো হয় র‌্যাফও। আক্রান্ত ওই অভিযুক্তকে উত্তেজিত জনতার হাত থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভরতি করানো হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, অশোকনগরের শ্রীকৃষ্ণপুর পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা ওই মৃতের নাম মিলন ঘোষ। তিনি এলাকারই একজন ওষুধ ব্যবসায়ী ছিলেন। আর অভিযুক্ত যুবক অপু কাহার পেশায় টোটো চালক।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত অপু কাহারের স্ত্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল মিলনের। তাদের ঘনিষ্ঠতা বাড়তে থাকায় এই নিয়ে দু’‌জনের মধ্যে অশান্তি চরমে উঠে। এই ঘটনা নিয়ে অপু ও মিলনের মধ্যে একাধিকবার বচসা মারামারিও হয়। এদিন মীমাংসা করার অছিলায় মিলনকে অশোকনগরের নটনি বাজারে ডেকে পাঠায় অপু। তার কথা মতো মিলন ওই বাজারে যান। সেখানে পৌঁছে একটি চায়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছিলেন মিলন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, আচমকাই ওই ব্যক্তি হাতে ধারালো অস্ত্র নিয়ে সেখানে উপস্থিত হন। এর পর মিলনের পিছন দিক থেকে এসে তাঁকে এলোপাথাড়ি কোপাতে থাকে অপু। ঘটনার জেরে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মিলন। প্রকাশ্য রাস্তায় এই ঘটনা ঘটতে দেখে মুহূর্তের মধ্যে জড়ো হয়ে যান এলাকার বাসিন্দারা। এরপরই উত্তেজিত জনতা লাঠি, বাঁশ হাতে নিয়ে চড়াও হন অপুর উপরে। তাঁকে ধরে বেধড়ক মারধর করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

ঘটনার জেরে গোটা এলাকা অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। খবর দেওয়া হলে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। পুলিশের সমনেই ওই অভিযুক্তকে মারধর করতে থাকে উত্তেজিত জনতা। এর পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে র‌্যাফ নামানো হয়। পুলিশের কিছুক্ষণের চেষ্টায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। উত্তেজিত জনতার হাত থেকে অভিযুক্তকে ছাড়িয়ে হাসপাতালে ভরতি করা হয়।

বন্ধ করুন