বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'রাজ্যপালের মুখ দেখলেই ডিপ্রেশন হয়, পরকীয়া আর রাজ্যপাল দুটোই আমের চাটনি,' মদন
মদন মিত্র, তৃণমূল বিধায়ক (ফাইল ছবি)
মদন মিত্র, তৃণমূল বিধায়ক (ফাইল ছবি)

'রাজ্যপালের মুখ দেখলেই ডিপ্রেশন হয়, পরকীয়া আর রাজ্যপাল দুটোই আমের চাটনি,' মদন

  • তিনি বলেন, 'এই রাজ্যপাল ৭২ ঘণ্টার মধ্যে চলেও যেতে পারেন।'

‘আমার রাজ্যপালের মুখ দেখলেই ডিপ্রেশন হয়।’ বক্তব্য কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্রের। শুধু এখানেই থেমে থাকেননি তিনি। বৃহস্পতিবার হাওড়ার বালির একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সরাসরি রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে নিশানা করেন মদন মিত্র। তিনি বলেন,' এই রাজ্যপাল ৭২ ঘণ্টার মধ্যে চলেও যেতে পারেন। পাশাপাশি তাঁর দাবি, রাজ্যপালকে নিয়ে যত কম বলা যায় ততই ভালো। পরকীয়া আর রাজ্যপাল দুটোই লেবুর চাটনি বা আমের আচারের মতো। তিনি কয়েকদিন আগেই বললেন হাজার হাজার বাঙালি নাকি অসম চলে গিয়েছেন। তিনি বলতেই পারতেন আমি শিলং বেড়াতে যাব, সরকারি পয়সায়, বিজনেস ক্লাসে। আমি মদন মিত্র চ্যালেঞ্জ করছি এখানে ৩জন বিজেপি কর্মীর বাড়ি দেখান যাদের বাড়ি ভাঙচুর হয়েছে বা লাশ এখান দিয়ে নিয়ে যেতে হয়েছে। তেমন হলে আমি বিধায়ক পদ ছেড়ে দেব।'

কারোর নাম না করে মদন মিত্রের সংযোজন, ‘রাজ্যপালের উপযুক্ত এক মহিলা বাংলায় আছেন। ওকে দেখলে আমার ছোটবেলার কথা মনে পড়ে যায়। জল পড়ে, পাতা নড়ে, পাগলা হাতি মাথা নাড়ে। এই মুহূর্তে রাজ্যপালের মতো পদ প্রস্তাব এনে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া উচিৎ। লক্ষ লক্ষ কোটি, কোটি টাকা ফুর্তি মারছ, লুঠ করছ, আর আমফান, ইয়াসে লোক না খেতে পেয়ে মরে যাচ্ছে। লজ্জা হয় না।’ তবে শুধু রাজ্যপাল নয় মদনের নিশানায় খোদ প্রধানমন্ত্রীও। মদন মিত্র বলেন, ‘এবার প্রধানমন্ত্রী ভোট প্রচারে এসে বলেছিলেন, মেরে দিদি হ্যায় তোলাবাজ। এতো বালির মস্তানরাও বলে না। বাংলার মানুষ দুটো গালে দুটো থাপ্পড় মারল।’ 

 

বন্ধ করুন