বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করায় কুকুরের কাছে ক্ষমা চাইলেন সেলিম
সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সেলিম। নিজস্ব চিত্র

পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করায় কুকুরের কাছে ক্ষমা চাইলেন সেলিম

  • এর পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘কেন্দ্র আর রাজ্যের পুলিশে কোনও ফারাক নেই। কুকুরকে সঠিকভাবে প্রশিক্ষণ দিলে সে নিশ্চিতভাবে খুনি ধরে দেবে।

পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করে নিজের অবস্থানে অনড় রইলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সেলিম। রবিবার বীরভূমে এক জনসভায় তাঁর মন্তব্যের সমালোচনাকারীদের কটাক্ষ করলেন তিনি। বললেন, পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করে কুকুরের অপমান করেছি। সেজন্য আমি ক্ষমা চাইছি।

এদিন বীরভূমে এক জনসভায় সেলিম বলেন, ‘আমি পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করেছি বলে তৃণমূলের লোকেরা নানা কথা বলছে। আমি সাধারণত এরকম কথা বলি না। কিন্তু এবার আমার বক্তব্যের জন্য আমি ক্ষমা চাইছি। পুলিশকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করে আমি কুকুরের অপমান করেছি’।

এর পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘কেন্দ্র আর রাজ্যের পুলিশে কোনও ফারাক নেই। কুকুরকে সঠিকভাবে প্রশিক্ষণ দিলে সে নিশ্চিতভাবে খুনি ধরে দেবে। কিন্তু পুলিশ খুনি ধরতে পারে না। তাই এসপির জায়গায় ২ – ৩টে বিদেশি কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া ভাল। এসপির কাজ কি শুধু অনুব্রতর কথা মতো মিথ্যা মামলা সাজানো?’

ঘটনার সূত্রপাত গত ৩০ মার্চ। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরে কোম্পানি পুকুর থেকে উদ্ধার হয় সিপিআইএম কর্মী বিদ্যুৎ মণ্ডলের দেহ। তার পর এক মাসের বেশি সময় কেটে গেলেও খুনিকে ধরতে পারেনি পুলিশ। শনিবার জুলপিয়ার কয়লা মোড়ে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেছিল সিপিআইএম। সেখানে হাজির ছিলেন সেলিম। তিনি বলেন, ‘এখানে আমরা প্রতিবাদ সভা করছি আর ওরা সুড়সুড় করে ওখানে গিয়েছে। ঘটনার দিনই তো যাওয়া উচিত ছিল। বয়ান রেকর্ড করা উচিত ছিল। আজ নিহতের মাকে জিজ্ঞাসা করছে কার ওপরে সন্দেহ হয়। যার নাম বলবে তার কাছে যাবে? এর জন্য পুলিশ রাখার কী দরকার ছিল। কয়েকটা কুকুর পুষলেই তো হয়। শুঁকে শুঁকে খুনিকে ধরিয়ে দিতে পারত।’

 

বন্ধ করুন