বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > হাতির বিষ্ঠায় মিলল প্লাস্টিক, বামনপোখরির বনাঞ্চলে অবৈধভাবে বর্জ্য ফেলার অভিযোগ
প্রতীকী ছবি
প্রতীকী ছবি

হাতির বিষ্ঠায় মিলল প্লাস্টিক, বামনপোখরির বনাঞ্চলে অবৈধভাবে বর্জ্য ফেলার অভিযোগ

  • বনকর্মীদের মতে, ওই সব বস্তু যদি হাতির পেটে যায় তবে তা প্রাণঘাতী হতে পারে।

ফের প্রশ্নের মুখে পশ্চিমবঙ্গের বন্যপ্রাণের ভবিষ্যৎ। অভিযোগ, কার্শিয়াং বন বিভাগের অন্তর্গত বামনপোখরির বিভিন্ন এলাকায় অবৈধভাবে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য। খিদের তাড়নায় সেগুলিই উদরস্থ করছে বুনো হাতির দল। সম্প্রতি হাতির গোবরে পাওয়া গিয়েছে শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক সেই সব বর্জ্য।

বামনপোখরির এক এলাকায় হাতির বিষ্ঠা থেকে প্লাস্টিক পাওয়া গিয়েছে বলে জানায় বন্যপ্রাণ কর্মীদের একটি দল। বন দফতরের কর্মীদের সঙ্গে নিয়েই তাঁরা এই এলাকায় যৌথ পরিদর্শন চালাচ্ছেন। সেখানেই কিছু বর্জ্য ফেলার জায়গায় তাঁরা অবৈধ নন–বায়োডেগ্রেডেবল বস্তু খুঁজে পেয়েছে। যা হাতি বা অন্য বন্যপ্রাণের উপযুক্ত প্রাকৃতিক পরিবেশের পক্ষে ক্ষতিকারক। বনকর্মীদের মতে, ওই সব বস্তু যদি হাতির পেটে যায় তবে তা প্রাণঘাতী হতে পারে।

বন্যপ্রাণ কর্মী অভিযান সাহা বলেন, ‘‌কার্শিয়াং বন বিভাগের অন্তর্গত বামনপোখরির এই এলাকায় বহু দিন ধরে অবৈধভাবে বর্জ্য–নোংরা ফেলা হচ্ছে। ওখান থেকে অনেক হাতি যাতায়াত করে। খিদের জ্বালায় কখনও কখনও ওই বর্জ্য খেয়ে ফেলে ওরা। বোঝা যাচ্ছে, এ কারণেই হাতির গোবর থেকে প্লাস্টিক পাওয়া যাচ্ছে। অবৈধভাবে বর্জ্য ফেলা বন্ধ করতে আমরা এর নমুনাগুলি ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়া–য় পাঠাব।’‌

শিলিগুড়ির ঐরাবত ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে অভিযান আরও বলেন, ‘‌আমরা বামনপোখরির জনবহুল এলাকা থেকে গোবরের নমুনা সংগ্রহ করছি। সংগ্রহ হয়ে যাওয়ার পর সেগুলি আমরা ওয়াইল্ডলাইফ ট্রাস্ট অফ ইন্ডিয়া–কে পাঠাব, যাতে তারা ওই বন্য এলাকায় অবৈধভাবে বর্জ্য ফেলা বন্ধ করতে পদক্ষেপ নিতে পারে।’‌

ওই সংস্থার আর এক সদস্য ডাঃ ঋত্বিক বিশ্বাস বলেন, ‘‌প্রায়ই দেখা যাচ্ছে, হাতিরা ক্ষতিকারক প্লাস্টিক খেয়ে ফেলছে। এতে ওদের জীবন সংশয় হতে পারে। তাই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি। এবং ভবিষ্যতেও এই বন্য এলাকা সংরক্ষম যা প্রয়োজন করব।’‌

বন্ধ করুন