বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > এই সময়ে রাজ্যের ৪ নেতাকে গ্রেফতার কি ঠিক, প্রশ্ন তুললেন অধীর
 কংগ্রেস নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরীর।

এই সময়ে রাজ্যের ৪ নেতাকে গ্রেফতার কি ঠিক, প্রশ্ন তুললেন অধীর

  • অধীর রঞ্জন চৌধুরী জানান, বাংলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার কেউ যেন না হয়।কাউকে ধরব, কাউকে ছাড়ব, সিবিআই এই নীতি গ্রহণ করতে পারে না।

করোনা আবহে রাজ্যের ৪ জন বর্তমান ও প্রাক্তন মন্ত্রীকে গ্রেফতারের ঘটনা কি সময়োচিত। সোমবার এই প্রশ্নই তুললেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী।একই সঙ্গে তিনি সাফ জানিয়ে দেন, রাজ্যের কেউ যেন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার না হন। একজনের জন্য আইন একরকম, অন্যজনের জন্য আরেকরকম, এটা যেন না হয়।

এদিন সকালে বাড়ি গিয়ে রাজ্যের ২ বর্তমান মন্ত্রী ও ২ জন প্রাক্তন মন্ত্রীকে নিজাম প্যালেসে নিয়ে আসে সিবিআই। এরপর তাদেরকে নারদকাণ্ডে অভিযুক্ত থাকার অপরাধে গ্রেফতার করা হয়। এদিন এই ঘটনা ছড়িয়ে পড়তেই রাজনৈতিক মহলে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়।

নিজাম প্যালেসে চলে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ৬ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে সিবিআইয়ের দফতরের সামনেই অবস্থান বিক্ষোভে বসেন মুখ্যমন্ত্রী। এই ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের তরফে প্রতিহিংসার রাজনীতি করার অভিযোগ করা হয়েছে।সেই প্রসঙ্গ তুলেই প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী জানান,‘‌বাংলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার কেউ যেন না হয়।কাউকে ধরব, কাউকে ছাড়ব, সিবিআই এই নীতি গ্রহণ করতে পারে না।’‌ তিনি জানান, যাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদেরকে এই করোনা আবহে কীভাবে নিরাপত্তা দেওয়া যাবে, সেই প্রশ্নটিও আছে।সময় জটিল। সারা বাংলা করোনা আক্রান্ত।এই পরিস্থিতিতে গ্রেফতার করা কী সমীচিন হয়েছে, সেই প্রশ্ন আমি অবশ্যই করব।’‌

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির বক্তব্য থেকেই স্পষ্ট, করোনা আবহে যেখানে প্রতিদিন প্রচুর মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন, যখন একটা কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে বাংলা অতিবাহিত হচ্ছে, সেখানে এই সময়ে রাজ্যের ৪ বর্তমান ও প্রাক্তন মন্ত্রীকে সিবিআইয়ের গ্রেফতারি নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন তিনি।

বন্ধ করুন