বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মানিয়ে নিতে হবে, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে জামাই আদর দেওয়া সম্ভব নয়: শতাব্দী
ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

মানিয়ে নিতে হবে, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে জামাই আদর দেওয়া সম্ভব নয়: শতাব্দী

  • সাংসদের দাবি, ‘কেউ মাছ পেলে বলছেন, মাংস পাইনি। কেউ মাংস পেলে বলছেন, ডিম পাইনি। এভাবে কী করা যাবে?’

ফের বিতর্কিত মন্তব্য বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ের। এবার ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিকদের নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করলেন তিনি। শনিবার আমোদপুরে শতাব্দী বলেন, ‘পরিযায়ী শ্রমিকরা জামাই আদর পেতে চাইচেন। তা দেওয়া সম্ভব নয়।’

শনিবার বীরভূমের আমোদপুরে প্রশাসনিক বৈঠকে হাজির ছিলেন স্থানীয় সাংসদ শতাব্দী। সেখানে প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক সেরে বেরিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তৃণমূল সাংসদ বলেন, ‘পরিযায়ী শ্রমিকরা কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে জামাই আদর চাইছেন। তা কোনও মতেই দেওয়া সম্ভব নয়।’

সাংসদের দাবি, ‘কেউ মাছ পেলে বলছেন, মাংস পাইনি। কেউ মাংস পেলে বলছেন, ডিম পাইনি। এভাবে কী করা যাবে?’ শতাব্দীর যুক্তি, ‘বাড়িতে এত মানুষ একসঙ্গে এলে কিছু সমস্যা হতেই পারে। সেগুলো মানিয়ে নেওয়া উচিত।’

শতাব্দীর মন্তব্য নিয়ে ইতিমধ্যে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন বিরোধীরা। তাদের দাবি, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে অমানবিক জীবন যাপন করছেন ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিকতরা। কোথাও খাবার মিলছে না ঠিক মতো, কোথাও আবার ঘরে পাখা নেই। কোথাও আবার শৌচাগার অপরিচ্ছন্ন। এই পরিস্থিতিতে তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল না হয়ে, উলটো ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিকদেরই কাঠগড়ায় তুলছেন শতাব্দী।

 

বন্ধ করুন