বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Karam Parab: করম পরবে পূর্ণাঙ্গ ছুটির দাবীতে বাঁকুড়ায় সড়ক অবরোধ করল কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ
বাঁকুড়ায় কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষের পথ অবরোধ। নিজস্ব ছবি।

Karam Parab: করম পরবে পূর্ণাঙ্গ ছুটির দাবীতে বাঁকুড়ায় সড়ক অবরোধ করল কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ

  • আগামী মঙ্গলবার ৬ সেপ্টেম্বর রয়েছে কুড়মি সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব করম পরব। এই উৎসবের সঙ্গে কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষের আবেগ জড়িত রয়েছে। সে কথা মাথায় রেখে শুধুমাত্র যে অংশে কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ রয়েছে সেই অংশে অর্ধ দিবস ছুটি দেওয়া হয়েছে।

করম পরবে আংশিক ছুটি নয়, পূর্ণাঙ্গ ছুটির দাবি উঠল। এই দাবিতে আজ সকাল থেকে বাঁকুড়া জেলার বিভিন্ন রাস্তা অবরোধ করলেন কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ। সন্ধে ছটা পর্যন্ত ১২ ঘন্টা অবরোধ চলবে বলে কুড়মি সম্প্রদায়ের তরফে জানানো হয়েছে। তাদের দাবি করম পরবে পূর্ণ দিবস ছুটি না দিলে তারা বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন।

আগামী মঙ্গলবার ৬ সেপ্টেম্বর রয়েছে কুড়মি সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব করম পরব। এই উৎসবের সঙ্গে কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষের আবেগ জড়িত রয়েছে। সে কথা মাথায় রেখে শুধুমাত্র যে অংশে কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ রয়েছে সেই অংশে অর্ধ দিবস ছুটি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু, কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষের দাবি, রাজ্যজুড়ে এই দিনটিতে পূর্ণাঙ্গ ছুটি দেওয়া হোক। সেই দাবিতে আজ বাঁকুড়ার জঙ্গলমহল জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় পথ অবরোধ করছেন কুড়মি সমাজ। বাঁকুড়ার রাইপুর, রানীবাঁধ, পি মোড় সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়ে অবরোধ করছেন কুড়মি সমাজের মানুষেরা।

এই অবরোধের জেরে সকাল থেকেই বাঁকুড়ার রাইপুর-ঝাড়গ্রাম রাজ্য সড়ক ও বাঁকুড়া- রানীবাঁধ সড়কে যান চলাচল স্তব্ধ হয়ে যায়। করম পরব ছাড়াও কুড়মি সমাজের ইঁদ পরব, বান্দনা পরব সহ অন্যান্য উৎসবে সরকারি স্বীকৃতি হিসেবে পূর্ণ দিবস ছুটি ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন তারা। না হলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনের নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছে কুড়মি সমাজ।

অন্যদিকে, একই চিত্র দেখা যায় খাতড়া সদর এলাকায়। রাজ্যসড়কের উপর শালগাছের ডাল ফেল অবরোধ করেন কুড়মি সমাজের মানুষরা। এছাড়া, মালদা, পশ্চিম মেদিনীপুর, পুরুলিয়া প্রভৃতি জেলাতেও রাস্তা অবরোধ করেনকুড়মি সমাজের মানুষ। পরিমল মাহাতো নামে এক আন্দোলনকারী জানিয়েছেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরে করম পরবে পূর্ণাঙ্গ ছুটির দাবি জানিয়ে আসছি। কিন্তু তারপরেও রাজ্য সরকার তা করেনি। তাই আমাদের এই আন্দোলন।’

বন্ধ করুন