বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মন্ত্রিত্ব ছাড়লেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা, হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতির পদ থেকেও ইস্তফা
বড় খবর

মন্ত্রিত্ব ছাড়লেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা, হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতির পদ থেকেও ইস্তফা

লক্ষ্মীরতন শুক্লা। ফাইল ছবি
লক্ষ্মীরতন শুক্লা। ফাইল ছবি

  • ২০২০–র জুলাই মাসেই লক্ষ্মীরতনকে হাওড়া জেলা তৃণমূলের সভাপতি করা হয়। সেই পদ থেকেও তিনি ইস্তফা দিয়েছেন। আপাতত কিছুদিন বিশ্রাম নিতে চান লক্ষ্মীরতন, এমনই জানা গিয়েছে।

ফের ধাক্কা পশ্চিমবঙ্গের শাসকদলে। মন্ত্রিত্ব ছাড়লেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা। একইসঙ্গে হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতির পদ থেকেও ইস্তফা দিয়েছেন তিনি। তবে এখনই উত্তর হাওড়ার বিধায়ক পদ ছাড়ছেন না লক্ষ্মীরতন।

মঙ্গলবার তৃণমূল সুপ্রিমো তথা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়ে লক্ষ্মীরতন শুক্লা জানিয়েছেন, তিনি আর মন্ত্রী হিসেবে থাকতে চান না। তাঁর আবেদন গৃহীত হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে। লক্ষ্মীরতন শুক্লা আপাতত রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন বলে ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর। ২০২০–র জুলাই মাসেই লক্ষ্মীরতনকে হাওড়া জেলা তৃণমূলের সভাপতি করা হয়। সেই পদ থেকেও তিনি ইস্তফা দিয়েছেন। হাওড়া জেলা তৃণমূল সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি চেয়ে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি সুব্রত বক্সির কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন আপাতত কিছুদিন বিশ্রাম নিতে চান লক্ষ্মীরতন, এমনই জানা গিয়েছে।

২০১৬ সালে তৃণমূলে এসে উত্তর হাওড়া বিধানসভার টিকিট নিয়ে লড়েছিলেন লক্ষ্মীরতন। ভাল মার্জিনে জিতে তিনি বিধায়ক হন। এর পরই তাঁকে ক্রীড়া দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়। ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, বেশ কিছু ব্যাপার নিয়ে দলের প্রতি ক্ষোভ জমছিল তার। গত ৪–৫ মাস ধরে তিনি দলে কাজ করতে পারছিলেন না বলে আক্ষেপ প্রকাশ করেছিলেন তিনি।

ঘনিষ্ঠ মহলে লক্ষ্মীরতন শুক্লা অভিযোগ করে জানিয়েছিলেন, তাঁর এলাকায় অনুষ্ঠান, কিন্তু তাঁকেই আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না। দলের প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানেও জেলা সভাপতিকে ডাকা হয়নি বলে আক্ষেপ করেছিলেন লক্ষ্মীরতন। এই অপমান তিনি মেনে নিতে পারেননি বলেই দাবি ঘনিষ্ঠ মহলের। জানা গিয়েছে, এই মুহূর্তে ব্যক্তিগত কাজে পরিবারের সঙ্গে বাইরে রয়েছেন তিনি। সেখান থেকে ফিরে তাঁর পদত্যাগ নিয়ে তিনি বিস্তারিত জানাবেন।

বন্ধ করুন