বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ডাকঘরে নেই পোস্ট ম্যান, তাই পৌঁছল না রেশন কার্ড, সরকারি খাতায় মৃত্যু হল রিন্টুর
পোস্ট অফিসে পড়ে থাকা রেশন কার্ডের বান্ডিল থেকে বেরোয় রিন্টুবাবুর রেশন কার্ড। 
পোস্ট অফিসে পড়ে থাকা রেশন কার্ডের বান্ডিল থেকে বেরোয় রিন্টুবাবুর রেশন কার্ড। 

ডাকঘরে নেই পোস্ট ম্যান, তাই পৌঁছল না রেশন কার্ড, সরকারি খাতায় মৃত্যু হল রিন্টুর

  • রিন্টুবাবুর অভিযোগ পোস্ট অফিস তাঁকে রেশন কার্ড পৌঁছে না দিয়ে মৃত বলে চালিয়ে দিয়েছে।অন্যদিকে ভুয়ো কর্মী হিসেবে কর্মরত সুব্রত সরকারের দাবি, তিনি দীর্ঘদিন ধরে এই কাজ করছেন।

ভুয়ো কর্মীদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে পোস্ট অফিসে। এই অভিযোগে উত্তাল হল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ লাগোয়া দেবীনগর। স্থানীদের অভিযোগ, দেবীনগর ডাকঘরের পোস্ট ম্যানরা অফিসে আসেন না। বদলে অন্যদের দিয়ে কাজ করার তাঁরা। এর ফলে সময়মতো পৌঁছচ্ছে না জরুরি কাগজপত্র। এই অভিযোগে শনিবার ডাকঘরের সামনে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা।

স্থানীয়দের দাবি, দেবীনগর পোস্ট অফিসে নিযুক্ত পোস্টম্যানরা ডাকঘরে আসেন না। বদলে তাঁরা স্বল্প বেতনে ভুয়ো কর্মী রেখেছেন। তাঁরাই বকলমে সব কাজ করেন। অভিযোগ, সেই কর্মীরা সময়মতো দরকারি কাগজপত্র বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন না। ফলে রেশন কার্ড আধার কার্ড পোস্ট অফিসেই পড়ে থাকছে। এই নিয়ে কোনও হেলদোল নেই পোস্ট মাস্টারের। তাঁর নাকের ডগাতেই চলছে বেনিয়ম।

পোস্ট অফিসের গ্রাহক রিন্টু তালুকদারের অভিযোগ, তিনি ৩ বছর ধরে তাঁর রেশন কার্ড না পেয়ে ফুড সাপ্লাই অফিসে যোগাযোগ করলে দেখা যায় তার নামের পাশে মৃত বলা হয়েছে। রিন্টুবাবুর অভিযোগ পোস্ট অফিস তাঁকে রেশন কার্ড পৌঁছে না দিয়ে মৃত বলে চালিয়ে দিয়েছে। 

অন্যদিকে ভুয়ো কর্মী হিসেবে কর্মরত সুব্রত সরকারের দাবি, তিনি দীর্ঘদিন ধরে এই কাজ করছেন। যখন কোনো পোস্টম্যান আসেন না তাঁর জায়গায় কাজ করেন। এছাড়া পোস্ট অফিসে কর্মীর অভাব রয়েছে। তাই অন্য কাজেও হাত লাগান তিনি।

যদিও দেবীনগর পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার দেবাশিষ রায়ের দাবি, সরকারি নিয়ম মেনে এভাবে কর্মী নিয়োগ করা যেতে পারে।

 

বন্ধ করুন