বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Lockdown in Bengal: বাংলায় কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউনের মেয়াদ বেড়ে ১৫ জুন
চতুর্থ দফার লকডাউনে হাওড়া ব্রিজ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
চতুর্থ দফার লকডাউনে হাওড়া ব্রিজ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

Lockdown in Bengal: বাংলায় কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউনের মেয়াদ বেড়ে ১৫ জুন

  • কনটেনমেন্ট ‘বি’ এবং ‘সি’ জোনে একাধিক গতিবিধিতে ছাড় থাকবে।

পশ্চিমবঙ্গের কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ল আরও ১৫ দিন। অর্থাৎ আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউন চলবে। জানাল রাজ্য সরকার।

নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, 'কার্যকরীভানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে অ্যাফেক্টেড এলাকায় (কনটেনমেন্ট জোন) লকডাউন বজায় রাখা এবং একইসঙ্গে আর্থ-সামাজিক জাগরণের জন্য অন্যান্য এলাকা বিভিন্ন কাজ শুরু করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব হয়েছে। তাই বাড়তি ছাড় এবং শর্তসাপেক্ষে আরও দু'সপ্তাহ অর্থাৎ আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার।' 

অর্থাৎ অ্যাফেক্টেড বা ‘এ’ কনটেনমেন্ট জোনে কোনও গতিবিধি এবং কাজে ছাড় দেওয়া হবে না। সেখানে কঠোরভাবে লকডাউন লাগু করা হবে। তবে কনটেনমেন্ট ‘বি’ এবং ‘সি’ জোনে একাধিক গতিবিধিতে ছাড় থাকবে। সংশ্লিষ্ট জোনদুটিতে এতদিন যে ছাড় ছিল, তা থাকছেই। পাশাপাশি আরও কয়েকটি ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। একনজরে দেখে নিন সেগুলি -

১) আগামী ১ জুন থেকে ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করতে পারবে চা-বাগানগুলি। চায়ের সহায়ক শিল্পের ক্ষেত্রেও একই ছাড় প্রয়োজ্য হবে।

২) ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে চটকলগুলি কাজ শুরু করতে পারবে।

৩) খনন কাজ-সহ ক্ষুদ্র, ছোটো মাঝারি এবং বড় শিল্পে ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করা যাবে।

৪) আগামী ১ জুন থেকে আন্তঃজেলা সরকারি এবং বেসরকারি বাস পরিষেবা শুরু করা হবে। বাসে যতগুলি আসন আছে, ততজন যাত্রীকে বাসে তোলা যাবে। কেউ দাঁড়িয়ে যেতে পারবেন না। সব যাত্রীকে সবসময়ে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক এবং গ্লাভস পরে থাকতে হবে।

৫) স্থানীয় পুলিশের অনুমতি নিয়ে ধর্মীয় স্থান খোলা যাবে। একসঙ্গে ১০ জনের বেশি মানুষ ধর্মীয় স্থানে ঢুকতে পারবেন না। সেখানে কোনওরকম জমায়েত বরদাস্ত করা হবে না।

৬) টেলিভিশন, সিনেমা, ওয়েব পোর্টাল, ওটিটি প্ল্যাটফর্মের শ্যুটিং শুরু করা যাবে। ইউনিটে একইসঙ্গে ৩৫ জনের বেশি কলাকুশলী হাজির থাকতে পারবেন না। এদিকে, রিয়্যালিটি শোয়ের শ্যুটিং করা যাবে না।

৭) রোটেশন পদ্ধতিতে আগামী ৮ জুন থেকে সর্বাধিক ৭০ শতাংশ  কর্মী নিয়ে কাজ করতে পারবে সরকারি অফিসগুলি।

৮) বেসরকারি অফিস এবং প্রতিষ্ঠানের কর্মী সংখ্যা নির্ধারণ করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তবে বাড়ি থেকে কাজে উৎসাহ প্রদান করতে হবে।

৯) আগামী ৮ জুন থেকে হোটেল, রেস্তোরাঁ চালু করা যাবে।

১০) আগামী ৮ জুন থেকে শপিং মল চালু করা হবে।

বন্ধ করুন