বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > শিলিগুড়ি-রায়গঞ্জে লকডাউনকে বুড়ো আঙুল, শনিবার থেকে বিধিনিষেধ শুরু রানিগঞ্জে
বাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪,৪২৭ (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
বাংলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪,৪২৭ (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

শিলিগুড়ি-রায়গঞ্জে লকডাউনকে বুড়ো আঙুল, শনিবার থেকে বিধিনিষেধ শুরু রানিগঞ্জে

  • ডানকুনি পুর এলাকায় আংশিক বিধিনিষেধ কার্যকর হয়েছে।

উত্তরবঙ্গ থেকে দক্ষিণবঙ্গ হোক বা পশ্চিমাংশ - রাজ্যে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে কনটেনমেন্ট জোন চিহ্নিত করে রাজ্যের একাংশে লকডাউন চলছে। একইসঙ্গে বিভিন্ন পুর এলাকায় সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের পথে হাঁটছে প্রশাসন। কোথাও ওয়ার্ডভিত্তিক লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছে, কোথাও আবার পুরো পুর এলাকায় কড়া বিধিনিষেধ লাগু হয়েছে।

রাজ্যের কোন কোন পুর এলাকায় লকডাউন চলছে বা কার্যকর হবে এবং সেখানকার লকডাউন চিত্র দেখে নিন -

শিলিগুড়ি 

বৃহস্পতিবার সকাল ন'টা থেকে শিলিগুড়ি পুরনিগম এলাকার ৪৭ টি ওয়ার্ডেই সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। লকডাউনের জন্য বিভিন্ন প্রান্তে ব্যারিকেড করা হলেও আমজনতা তাতে কার্যত ভ্রূক্ষেপই করেনি। যাবতীয় বিধিনিষেধ উড়িয়ে রাস্তায় বেরিয়েছেন অনেক মানুষ। পুর এলাকার বিভিন্ন প্রান্তে ভালো মতো ভিড় চোখে পড়েছে। অনেকে তো ন্যূনতম মাস্কও পরেননি। দেখে বোঝার উপায় নেই, শিলিগুড়িতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে।

রায়গঞ্জ 

বুধবার থেকে রায়গঞ্জ পুরসভায় সার্বিকভাবে লকডাউন শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে পাঁচ দিন লকডাউনের পর পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু প্রথম দু'দিন বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে রাস্তায় বেরনো, দোকান খোলার ছবি ধরা পড়েছে। এই পরিস্থিতিতে কঠোর বিধিনিষেধ কার্যকর করতে পুরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাসের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার অভিযানে নামে প্রশাসন।

রানিগঞ্জ 

আগামিকাল (শনিবার) থেকে রানিগঞ্জের দুটি ওয়ার্ডে সম্পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা করেছে আসানসোল পুরসভা। বৃহস্পতিবার লকডাউন সংক্রান্ত বৈঠকের পর জানানো হয়েছে, রানিগঞ্জের ৮৮ এবং ৮৯ নম্বর ওয়ার্ডে পরবর্তী এক সপ্তাহ কড়া বিধিনিষেধ জারি থাকবে। সেই সময়ের জন্য সাধারণ মানুষ প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনে রাখার আর্জি জানানো হয়েছে।

ডানকুনি

হুগলিতে করোনাভাইরাস জাল ক্রমশ ছড়িয়ে পড়েছে। তার জেরে আজ, শুক্রবার সকাল থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত আংশিক লকডাউনের পথে হেঁটেছে ডানকুনি পুরসভা। আগামী ১৫ দিন পুর এলাকায় কোনও সবজি এবং মাছের দোকান বসবে না। তবে পাড়ায় পাড়ায় ভ্যানে করে আনাজ ও মাছ বিক্রি করা হবে। সকাল সাতটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত মুদিখানা-সহ অন্যান্য দোকান খোলা থাকবে। জরুরি পরিষেবার দোকানের ক্ষেত্রে কোনও বিধিনিষেধ চাপানো হয়নি। অল্প সংখ্যক কর্মী নিয়ে পুরসভার কাজকর্ম অবশ্য চলবে। তবে সপ্তাহে তিন দিন সাধারণ মানুষ পুরসভায় যেতে পারবেন - সোমবার, বুধবার এবং শুক্রবার।

বন্ধ করুন