বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ‘‌ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবো’‌, মাধ্যমিকে প্রথম হয়ে প্রতিক্রিয়া রৌনকের
বর্ধমান সিএমএস স্কুলের রৌনক মণ্ডল।

‘‌ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবো’‌, মাধ্যমিকে প্রথম হয়ে প্রতিক্রিয়া রৌনকের

  • রৌনক ছোট থেকেই পড়াশোনায় মেধাবী। ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখে। জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষায় শীর্ষস্থানে যাওয়াই একমাত্র লক্ষ্য ছিল তার। তবে পড়াশোনার জন্য নির্দিষ্ট কোনও ধরাবাঁধা সময় তার ছিল না। কখনও রাত ১২টা পর্যন্ত পড়ত, আবার কখনও রাত ৯টার মধ্যেই পড়া শেষ।

এই বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল আজ, শুক্রবার প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, প্রথম হয়েছেন দু’জন। বাঁকুড়ার রামহরিপুর রামকৃষ্ণ মিশন হাইস্কুলের অর্ণব ঘড়াই এবং বর্ধমান সিএমএস স্কুলের রৌনক মণ্ডল। দু’জনের প্রাপ্ত নম্বর ৬৯৩। বর্ধমানে এই ছাত্রের ফলাফলে গর্ববোধ করছেন জেলার মানুষজন। বাবা–মা তাকে ধরে আদর এবং মৃষ্টিমুখ করাচ্ছেন।

কেমন ছাত্র রৌনক মণ্ডল?‌ প্রাথমিক শিক্ষক রৌনকের বাবা কুন্তল মণ্ডল জানান, রৌনক ছোট থেকেই পড়াশোনায় মেধাবী। ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখে। জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষায় শীর্ষস্থানে যাওয়াই একমাত্র লক্ষ্য ছিল তার। তবে পড়াশোনার জন্য নির্দিষ্ট কোনও ধরাবাঁধা সময় তার ছিল না। কখনও রাত ১২টা পর্যন্ত পড়ত, আবার কখনও রাত ৯টার মধ্যেই পড়া শেষ। তবে ছোট থেকেই স্কুলে প্রথম অথবা দ্বিতীয় স্থানের মধ্যেই থাকত রৌনক।

আর কী জানা যাচ্ছে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, রৌনক বর্ধমান শহরের গোলাহাট এলাকায় ভাড়া থাকে। রৌনকের বাবা জানান, ছেলে লেখাপড়ার জন‍্যই খণ্ডঘোষ ব্লকের কুকুরা গ্ৰাম ছেড়ে বর্ধমান শহরে থাকা শুরু করে। ছেলের সাফল‍্যে রৌনকের বাবা–মা বলেন, ‘‌আমাদের পরিশ্রম সফল হয়েছে।’‌ পাঠ্যবই পড়ার পাশাপাশি অন্যান্য সাধারণ জ্ঞান–সহ নানান ধরনের বই পড়ত রৌনক।

আর রৌনক কী বলছে?‌ মাধ্যমিকে প্রথম স্থান অধিকারের পর রৌনক মণ্ডল বলেন, ‘‌আগামী দিনে ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই। এই সাফল‍্যের পিছনে স্কুলের সকল শিক্ষক শিক্ষিকা এবং গৃহশিক্ষকদের সাহায‍্যতেই এই সাফল‍্য এসেছে। মায়ের কাছ থেকে বারবার অনুপ্রেরণা পেয়েছি। মা কোনওদিন পড়াশোনার জন্য বকেননি। বরং কঠিন বিষয় সহজভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন।’‌

বন্ধ করুন