বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মহুয়ার দু'পয়সার প্রেস মন্তব্য নিয়ে শোরগোল, টুইট করে বিতর্ক জিইয়ে রাখলেন সাংসদ
মহুয়া মৈত্র, কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ
মহুয়া মৈত্র, কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ

মহুয়ার দু'পয়সার প্রেস মন্তব্য নিয়ে শোরগোল, টুইট করে বিতর্ক জিইয়ে রাখলেন সাংসদ

  • ক্ষমা চাইলেন কিন্তু অবস্থান বদল করলেন না কৃষ্ণনগরের সাংসদ। 

তিনি তৃণমূলের প্রথমসারির সাংসদ। সংসদে তাঁর ভাষণ ভাইরাল হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। কিন্তু এবার সাংবাদিকদের সম্বন্ধে বেঁফাস মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন মহুয়া মৈত্র। দু’ পয়সার প্রেস, এভাবেই কর্মী সভায় উপস্থিত সাংবাদিকদের সম্বোধন করেন। এর জেরে বিতর্কের ঝড় ওঠে। সোমবার নিজের বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইলেন সাংসদ, কিন্তু নিজের অবস্থান থেকে সরলেন না। 

রবিবার গয়েশপুরে একটি কর্মীসভায় গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে সবাইকে বলেন মোবাইল রেকর্ডিং না করতে। আচমকা এক সাংবাদিক তাঁর নজরে আসে। ব্যাস, মারাত্মক ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন সাংসদ। বলেন, ‘কে এই দু’পয়সার প্রেসকে ভেতরে ডাকে? কর্মী বৈঠক হচ্ছে। আর সবাই টিভিতে মুখ দেখাতে ব্যস্ত। আমি নির্দেশ দিচ্ছি, প্রেসকে সরান’। 

এই ভিডিও ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর প্রতিবাদমুখর হন সাংবাদিকরা। প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে বলা হয়,‘কৃষ্ণনগরের সাংসদ মহুয়া মৈত্র সাংবাদিকদের সম্বন্ধে যে মন্তব্য করেছেন তাতে প্রেস ক্লাব, কলকাতা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে এবং তীব্র প্রতিবাদ করছে। তাঁর এই মন্তব্য নিঃসন্দেহে অনভিপ্রেত, অপমানজনক। ধিক্কার জানাই সাংসদের মন্তব্যে’।

কিন্তু নিজের অবস্থান থেকে সরে আসেননি মহুয়া।

টুইটার পোস্ট ও হোয়াটসঅ্যাপ ডিপিতে লিখেছেন,  ‘আই অ্যাপোলোজাইজ ফর দ্য মিন হার্টফুল অ্যাকিউরেট থিংস আই সেড ’। অর্থাৎ তাঁর কথাগুলি যে মানুষকে আহত করবে সেটি স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেও তিনি যা বলেছেন, সেটা সঠিক বলে দাবি মহুয়ার। অনেক সাংবাদিক যেভাবে দুই পয়সার ছবি শেয়ার করছিল, সেই ট্রেন্ডটি ফলো করেই নিজের টুইটটি করেন মহুয়া। আবার বলেন যে তিনি মিম এডিট করতে পারদর্শী হয়ে গিয়েছেন। 

তৃণমূল সাংসদের সাফাই যে তিনি দলীয় কর্মীদের ওপর রেগে গিয়েছিলেন কর্মীসভায় সাংবাদিকদের ডাকায়। তাঁদের উদ্দেশ্যে ওই বক্রোক্তি ছিল, সাংবাদিকদের তিনি নিশানা করেননি বলেই দাবি সাংসদের। 

 

বন্ধ করুন