বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সাহেবনগরে গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করলেন মূল অভিযুক্ত তহিরুদ্দিনের
তহিরুদ্দিন মণ্ডল। ছবি ফেসবুক থেকে
তহিরুদ্দিন মণ্ডল। ছবি ফেসবুক থেকে

সাহেবনগরে গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করলেন মূল অভিযুক্ত তহিরুদ্দিনের

  • আন্দোলনকারী মঞ্চের সদস্য মুস্তাক আলি বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলাম। তৃণমূল নেতারা এসে গণ্ডগোল পাকায়। তাতেই ২ জনের মৃত্যু হল।

মুর্শিদাবাদে CAA বিরোধী বিক্ষোভে গুলিতে ২ ব্যক্তির মৃত্যু ঘিরে ক্রমশ রাজনীতির উত্তাপ চড়ছে। সংবাদমাধ্যমের কাছে তাঁর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূলের জলঙ্গী উত্তর ব্লক সভাপতি তহিরুদ্দিন মণ্ডল। ওদিকে ঘটনায় দায় ঝাড়তে মরিয়া হয়ে উঠেছে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসও। যদিও কংগ্রেসের দাবি, গুলি চালিয়েছে তৃণমূলই।

মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূল সভাপতি আবু তাহের জানিয়েছেন, ‘CAA ও NRC বিরোধী কোনও আন্দোলনের বিরোধিতা করার কোনও নির্দেশ দলের তরফে আমাদের কাছে নেই। গুলি চালনায় আমাদের কোনও নেতা যুক্ত নন। পুলিশকে নিরপেক্ষ তদন্ত করতে বলেছি।’

আন্দোলনকারী মঞ্চের সদস্য মুস্তাক আলি বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলাম। তৃণমূল নেতারা এসে গণ্ডগোল পাকায়। তাতেই ২ জনের মৃত্যু হল। শুনেছি তহিরুদ্দিনের ভাইকেও তৃণমূলের গুন্ডারা গুলি করেছে।’

স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, CAA বিরোধী নাগরিক মঞ্চটি মুসলিমদের একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। তাতে তৃণমূল সমর্থকরাও রয়েছেন।

কংগ্রেসের দাবি, জেনে বুঝে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি চালিয়েছে তৃণমূল। তারা চায় না তৃণমূল ছাড়া কেউ CAA ও NRC নিয়ে পথে নামুক। তাই বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে তহিরুদ্দিন ও তার সাঙ্গপাঙ্গ।

মূল অভিযুক্ত তৃণমূলের জলঙ্গী উত্তর ব্লক সভাপতি তহিরুদ্দিন অবশ্য সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘হামলা চালিয়েছে কংগ্রেস। তাণ্ডব চালিয়ে একের পর এক গাড়ি ভাঙচুর করেছে তারা।’

বুধবার সকালে CAA বিরোধী একটি নাগরিক মঞ্চের বিক্ষোভের সময় মুর্শিদাবাদের জলঙ্গীর সাহেবনগরে গুলি চলে। গুলিতে মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। আহত হয়েছেন ৩ জন। ঘটনায় কয়েকজনকে আটক করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।



বন্ধ করুন