বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > লস্কর জঙ্গি সন্দেহে বসিরহাট থেকে এক যুবককে তুলে নিয়ে গেল গুজরাত পুলিশ
ধৃত আবদুর রাজ্জাক গাজি
ধৃত আবদুর রাজ্জাক গাজি

লস্কর জঙ্গি সন্দেহে বসিরহাট থেকে এক যুবককে তুলে নিয়ে গেল গুজরাত পুলিশ

  • গুজরাত পুলিশের দাবি, রাজ্জাক ২০০৬ সালে আমদাবাদ বিস্ফোরণের এক মূলচক্রীকে আশ্রয় দিয়েছিল। তার পর তাকে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পালাতে সাহায্য করে সে।

মহিলা জঙ্গি তানিয়া পারভিনের গ্রেফতারির পর কয়েক মাস কাটতে না কাটতেই উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট থেকে গ্রেফতার আরেক জঙ্গি। শুক্রবার বসিরহাটের দণ্ডিরহাট বাজার থেকে আবদুর রাজ্জাক গাজি নামে এক লস্কর ই তৈবার লিংকম্যানকে গ্রেফতার করে গুজরাট পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড। তার বিরুদ্ধে ২০০৬ সালের আমদাবাদ বিস্ফোরণের মূল অভিযুক্তকে আশ্রয় দেওয়া তাকে বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে সাহায্য করার অভিযোগ রয়েছে। যদিও অভিযোগ মানতে চায়নি রাজ্জাকের পরিবার। তাদের দাবি নীরিহ যুবককে ফাঁসানো হয়েছে। 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্জাকের খোঁজে গত সোমবার বসিরহাটে পৌঁছয় গুজরাত পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াডের বিশেষ দল। নেতৃত্বে ছিলেন আইপিএস ইমতেয়াজ শেখ। মঙ্গলবার থেকে রাজ্জাকের মোবাইল ফোনের লোকেশন ট্র্যাক করা শুরু করেন তাঁরা। শুক্রবার তাকে দণ্ডিরহাট বাজার থেকে গ্রেফতার করেন। 

গুজরাত পুলিশের দাবি, রাজ্জাক ২০০৬ সালে আমদাবাদ বিস্ফোরণের এক মূলচক্রীকে আশ্রয় দিয়েছিল। তার পর তাকে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে পালাতে সাহায্য করে সে। শুধু তাই নয়, সন্ত্রাসবাদীদের টাকা জোগান দিতে হুন্ডিতে যুক্ত ছিল ওই ব্যক্তি। বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা জোগাড় করে সন্ত্রাসবাদীদের কাছে পৌঁছে দিত রাজ্জাক। এমনকী বাংলাদেশে মানুষ পাচারের সঙ্গেও যুক্ত সে।

গুজরাত পুলিশের অভিযোগ মানতে নারাজ রাজ্জাকের পরিবার। তাদের দাবি, শান্ত নির্বিবাদী যুবককে ফাঁসানো হয়েছে। এলাকার বাইরে কোনও দিন কোথাও যায়নি রাজ্জাক। কী করে তার সঙ্গে সন্ত্রাসবাদীদের সম্পর্ক থাকতে পারে? ঘটনার প্রকৃত তদন্তের দাবি তুলেছেন ধৃতের স্ত্রী। 

 

বন্ধ করুন