বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Sundarban: দুদিনের জলোচ্ছ্বাসে ভেঙেছে নদীর বাঁধ, প্লাবিত বহু এলাকা, ক্ষতিগ্রস্থ কপিলমুনির সমুদ্রতট

Sundarban: দুদিনের জলোচ্ছ্বাসে ভেঙেছে নদীর বাঁধ, প্লাবিত বহু এলাকা, ক্ষতিগ্রস্থ কপিলমুনির সমুদ্রতট

সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাস। নিজস্ব ছবি

নিম্নচাপ ও কোটালের প্রভাবে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন এলাকার কাকদ্বীপ মহকুমায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। বহু মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পড়ছে। জলমগ্ন হয়ে পড়েছে বহু কাঁচাবাড়ি। বেশ কয়েক জায়গায় মাটির বাঁধ ভেঙে গিয়েছে।

গত দুদিন ধরে সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাসের ফলে সুন্দরবন সংলগ্ন নদীর বাঁধে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। জলোচ্ছ্বাসের জেরে লোকালয়ে জল ঢুকেছে। এর ফলে বহু জায়গায় নদীর মাটির বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সমুদ্রের নোনা জল লোকালয়ে ঢোকার ফলে বহু জমি প্লাবিত হয়ে গিয়েছে। যার ফলে মাঠের পর মাঠ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পাশাপাশি ভেসে গিয়েছে বহু পুকুর।

নিম্নচাপ ও কোটালের প্রভাবে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন এলাকার কাকদ্বীপ মহকুমায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে। বহু মানুষ আশ্রয়হীন হয়ে পড়ছে। জলমগ্ন হয়ে পড়েছে বহু কাঁচাবাড়ি। বেশ কয়েক জায়গায় মাটির বাঁধ ভেঙে গিয়েছে। প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে, সাগর ব্লকের বঙ্কিমনগর, বোটখালি ও মহিষামারিতে জল ঢুকেছে মাটির বাঁধ ভেঙে। বঙ্কিমনগরে বহু কাঁচাবাড়ি জগমগ্ন হয়ে পড়েছে। সেগুলি ভেঙে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই সেখানকার বাসিন্দাদের নিরাপদে সরানো হয়েছে। অন্যদিকে, গঙ্গাসাগরে অবস্থিত কপিলমুনির সমুদ্র তটও এই জলোচ্ছ্বাসের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে সমুদ্র তটে অবস্থিত বহু বিদ্যুতের খুঁটি, গাছ উপড়ে গিয়েছে। এরইমধ্যে আজও নিম্নচাপ এবং পূর্ণিমার কোটালের কারণে সমুদ্রের জল বাড়তে পারে। ফলে আরও ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বুধবারের পর বৃহস্পতিবারও পূর্ব মেদিনীপুর জেলার দিঘায় জলোচ্ছ্বাস হয়। সঙ্গে তীব্র ঝোড়ো হাওয়া বয়েছিল। ফল স্বরুপ গত ২ দিন সমুদ্র সৈকতে আসা পর্যটকদের সতর্ক করে প্রশাসন। মাইকিং করে পর্যটকদের সতর্ক করা হয়।

বন্ধ করুন