বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > BJP MLA missing: বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদ ‘নিখোঁজ’, দলের কর্মীর পোস্টারে চাঞ্চল্য পুরুলিয়ায়
এই পোস্টারকে ঘিরে চাঞ্চল্য। নিজস্ব ছবি

BJP MLA missing: বিজেপি বিধায়ক ও সাংসদ ‘নিখোঁজ’, দলের কর্মীর পোস্টারে চাঞ্চল্য পুরুলিয়ায়

  • স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ভোটে জেতার পর থেকে এলাকায় দেখা যায়নি বিজেপি সাংসদ ও বিধায়ককে। পরিস্থিতি দেখে নিখোঁজের বিষয়ে পোস্টার সাঁটানোর চিন্তা ভাবনা করেন এলাকার বাসিন্দা রঞ্জন গোস্বামী। তিনি নিজেকে এক জন বিজেপি কর্মী বলে দাবি করেছেন।

ভোটে জেতার পর থেকেই এলাকায় দেখা যায়নি বিধায়ক, সাংসদকে। দলের কর্মীদের পাশে দাঁড়ানো তো দূরের কথা সাধারণ মানুষের পাশেও দাঁড়াননি তাঁরা। এই অভিযোগ তুলে বিজেপি বিধায়ক এবং বিজেপি সাংসদকে নিখোঁজ দাবি করে পোস্টার পড়ল পুরুলিয়ায়। বিজেপিরই এক কর্মী রঘুনাথপুর বিধানসভার বিধায়ক এবং বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদের বিরুদ্ধে এই পোস্টার লাগিয়েছেন। তাঁরা কোথায়?‌ তাঁরা কী নিখোঁজ?‌ এই প্রশ্ন তোলা হয়েছে পোস্টারে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ভোটে জেতার পর থেকে এলাকায় দেখা যায়নি বিজেপি সাংসদ ও বিধায়ককে। পরিস্থিতি দেখে নিখোঁজের বিষয়ে পোস্টার সাঁটানোর চিন্তা ভাবনা করেন এলাকার বাসিন্দা রঞ্জন গোস্বামী। তিনি নিজেকে এক জন বিজেপি কর্মী বলে দাবি করেছেন। সাতুড়ি ও নিতুরিয়া ব্লকের বিভিন্ন জায়গায় ওই নিখোঁজের পোস্টার লাগাতে দেখা গিয়েছে ওই যুবককে। সেই পোস্টারে লেখা রয়েছে, ‘ভোটে জেতার পর এলাকার মানুষ দেখতে পায়নি বিজেপি থেকে জেতা রঘুনাথপুর বিধানসভার বিধায়ক বিবেকানন্দ বাউরী এবং বিজেপি থেকে জেতা বাঁকুড়া লোকসভার সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকারকে।’ এদের ছবি দেওয়া রয়েছে নীচে। তারপরেই বড় বড় করে লেখা হয়েছে ‘নিখোঁজ’। যদিও এ বিষয়ে ওই যুবককে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে বিজেপি করছেন তিনি। কিন্তু, ভোটে জেতার পর থেকে সাংসদ বা বিধায়ককে এলাকায় দেখতে পাওয়া যায়নি। তাই নিখোঁজের পোস্টার লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

গোটা ঘটনায় বিজেপিকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল। যদিও ওই পোস্টার প্রসঙ্গে বিজেপির সাফ দাবি, এই বিভ্রান্তিমূলক পোস্টার যিনি লাগিয়েছে তিনি সআর যাই হোক বিজেপি কর্মী হতে পারেন না। বিজেপির প্রতি খারাপ ভাবমূর্তি তৈরি করার জন্য তৃণমূলই এইসব করছে। সবমিলিয়ে এদিনের এই পোস্টার ঘিরে রাজনৈতিক চাপানোতর তৈরি হয়েছে। এর ফলে কিছুটা অস্বস্তিতে বিজেপি ।

বন্ধ করুন