বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দ্বন্দ্বের কাঁটা হুগলিতে, কর্মীসভায় দেখা নেই তৃণমূলের একাধিক নেতার
পান্ডুয়ায়  দলীয় কর্মীসভায় এলেন না অনেকেই। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্যে এএনআই)

দ্বন্দ্বের কাঁটা হুগলিতে, কর্মীসভায় দেখা নেই তৃণমূলের একাধিক নেতার

  • দলের একাধিক মুখকে মিটিংয়ে দেখা যায়নি। এদিকে বিষয়টি নজর এড়ায়নি অনেকের। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এভাবে দ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিলে যে বিরোধীদের সুবিধা হয়ে যাবে একথাও তলায় তলায় মানছেন অনেকে।

দ্বন্দ্ব সর্বত্র। এবার হুগলিতে তৃণমূলের কর্মীলসভাকে ঘিরেও ফের প্রকাশ্যে আসছে তৃণমূলের দ্বন্দ্ব।এদিকে পঞ্চায়েত ভোটকে সামনে রেখে ইতিমধ্যেই জেলায় জেলায় ঘর গোছাতে শুরু করেছে শাসকদল তৃণমূল। সেই মতো হুগলিতেও কর্মীসভার আয়োজন করা হয়েছিল। পান্ডুয়ার একটি হলে এই কর্মীসভার আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু একাধিক নেতা কর্মীর অনুপস্থিতির জেরে সেই কর্মীসভার আয়োজনেও তাল কাটল। শাসকদলের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ মুখকে দেখা যায়নি ওই মিটিংয়ে। সূত্রের খবর, ব্লক তৃণমূল সভাপতি অসিত চট্টোপাধ্যায়কে দেখা যায়নি মিটিংয়ে। এমনকী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি চম্পা হাজরাও গরহাজির ছিলেন মিটিংয়ে। সেই অনুপস্থিতির তালিকায় নাম ছিল শিক্ষা কর্মাধক্ষ্য সঞ্জীব ঘোষেরও।দলের একাংশের মতে, নানা কারণে দল একেবারে আড়াআড়িভাবে বিভক্ত। এক গোষ্ঠী কর্মসূচি করলে অপর গোষ্ঠী আসতে চায় না। মূলত বিরোধী গোষ্ঠীর প্রতিনিধিদের একাংশকেই এদিনের মিটিংয়ে দেখা যায়নি।

এদিকে শ্রীরামপুর-হুগলি সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্নেহাশিস চক্রবর্তী, চেয়ারপার্সন অসীম পাত্র প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন সভায়। কিন্তু দলের একাধিক মুখকে মিটিংয়ে দেখা যায়নি। এদিকে বিষয়টি নজর এড়ায়নি অনেকের। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এভাবে দ্বন্দ্ব মাথাচাড়া দিলে যে বিরোধীদের সুবিধা হয়ে যাবে একথাও তলায় তলায় মানছেন অনেকে। শ্রীরামপুর-হুগলি সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্নেহাশিস চক্রবর্তী বলেন, আমি সবাইকে কর্মীসভায় আসার আহ্বান করেছিলাম। কেন তাঁরা আসেননি খোঁজ নিচ্ছি।

 

বন্ধ করুন