বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > শিলিগুড়িতে নেমেই বৈঠকে কেন্দ্রীয় টিম, আবাসের তালিকা থেকে এত নাম বাদ কেন?

শিলিগুড়িতে নেমেই বৈঠকে কেন্দ্রীয় টিম, আবাসের তালিকা থেকে এত নাম বাদ কেন?

আবাস যোজনা নিয়ে বৈঠক কেন্দ্রীয় টিম

দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরের একাধিক জেলাতেও আবাস যোজনার তালিকায় প্রচুর গরমিলের অভিযোগ। এদিকে গরমিলের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই দার্জিলিং জেলায় ৬ হাজার জনের নাম বাদ দেওয়া হয়েছিল। এদিকে তালিকায় সব মিলিয়ে নাম ছিল ২৯ হাজার ৫০০জনের।

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা নিয়ে ভুরি ভুরি দুর্নীতির অভিযোগ। তা নিয়ে খতিয়ে দেখতে বাংলায় হানা দিচ্ছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদল। শনিবার রাজধানী এক্সপ্রেস থেকে নেমেই সেই কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের সদস্যরা সোজা হাজির হলেন শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের অফিসে। এরপরই তাঁরা শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের অফিসে চলে যান। সেখানেই শুরু হয় দফায় দফায় বৈঠক। জেলা ও বিডিও অফিসের পদস্থ কর্তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন দফতরের কর্তারা। এদিকে আবাস যোজনার তালিকা থেকে আচমকাই প্রায় ৬ হাজার নাম বাদ পড়েছে বলে দাবি করা হচ্ছে। আর তার জেরেই প্রশ্ন উঠেছে কীসের ভিত্তিতে এত নাম বাদ পড়ল তালিকা থেকে? কিন্তু এই ৬ হাজার সংখ্যাটাকে ঘিরেই সন্দেহ দানা বেঁধেছে। তবে তাঁরা সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কোনও কথা বলেননি।

জেলায় জেলায় আবাস যোজনার তালিকায় বড় গরমিলের অভিযোগ। গ্রামে গ্রামে গিয়ে একেবারে সরেজমিনে খতিয়ে দেখছেন কেন্দ্রীয় আধিকারিকরা। গ্রামে গিয়ে প্রশ্ন করছেন পাকা বাড়ি থাকা সত্ত্বেও কেন আবাস যোজনার তালিকায় তাদের নাম তোলা হল?

তবে কি শাসকদলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা থাকার জেরেই কি তালিকায় নাম তোলা হয়েছিল। এনিয়ে গ্রামে গ্রামে যাবতীয় গরমিল খতিয়ে দেখছেন কেন্দ্রীয় আধিকারিকরা। তবে এবার কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকদের নজরে উত্তরবঙ্গ। শিলিগুড়়ি, কালিম্পং, কোচবিহার, জলপাইগুড়ি সহ উত্তরের একাধিক জেলায় আবাস যোজনা নিয়ে নানা গরমিলের অভিযোগ রয়েছে। সূত্রের খবর, রবিবারই কেন্দ্রীয় টিমের সদস্যরা উত্তরের একাধিক জেলায় গিয়ে গরমিলের বিষয়গুলি খতিয়ে দেখতে পারেন।

এদিকে দক্ষিণবঙ্গের পাশাপাশি উত্তরের একাধিক জেলাতেও আবাস যোজনার তালিকায় প্রচুর গরমিলের অভিযোগ। এদিকে গরমিলের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই দার্জিলিং জেলায় ৬ হাজার জনের নাম বাদ দেওয়া হয়েছিল। এদিকে তালিকায় সব মিলিয়ে নাম ছিল ২৯ হাজার ৫০০জনের। সেই নাম থেকে বাদ দেওয়া হয় ৬ হাজার জনের। কিন্তু এক ধাক্কায় কেন এত নাম বাদ দেওয়া হল? সেই প্রশ্নটা থেকেই গিয়েছে। তবে কি সেই প্রশ্নের উত্তর পেতেই এবার শিলিগুড়িতে আসছেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা?

এদিকে তৎপরতা এতটাই তুঙ্গে যে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা শিলিগুড়িতে এসেই মহকুমা পরিষদের কনফারেন্স রুমে দ্রুত বৈঠকে বসে যান। ফাঁসিদেওয়া সহ তিনটি ব্লকের তালিকা তাঁরা তলব করেন। তবে শুধু বৈঠকে সীমাবদ্ধ থাকছে না বিষয়টি। তাঁরা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে কেন্দ্রীয় টিমের দুই প্রতিনিধি যাবতীয় গরমিলের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে পারেন বলে খবর।

 

বন্ধ করুন