বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > অন্য দল থেকে তৃণমূলে যোগদানকারী MLA-দের কি ইস্তফা দিতে বলা হয়েছে? মিহির গোস্বামী
মিহির গোস্বামী। ফাইল ছবি
মিহির গোস্বামী। ফাইল ছবি

অন্য দল থেকে তৃণমূলে যোগদানকারী MLA-দের কি ইস্তফা দিতে বলা হয়েছে? মিহির গোস্বামী

  • তৃণমূলকে বিঁধে মিহিরবাবুর প্রশ্ন, ‘তৃণমূলে এমন অনেক বিধায়ক রয়েছেন যারা বাম বা কংগ্রেস প্রার্থী হিসাবে নির্বাচিত। তারা তৃণমূলের ঝান্ডা নিয়ে মিটিং মিছিল করছেন। তাদের পদত্যাগ করার কোনও নির্দেশ দেননি।’

১০ দিন পর আবির্ভূত হয়েই ফের তৃণমূলের বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। এদিন সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূলের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তিনি। তাঁর ইস্তফা নিয়ে প্রশ্ন করলে পালটা বিঁধলেন তৃণমূলকেই। মিহির বাবুর মন্তব্যে কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে তৃণমূল। 

গত ২৯ অক্টোবর কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ অধিকারীর সঙ্গে বৈঠকের পর থেকে দেখা পাওয়া যাচ্ছিল না মিহিরবাবুর। সোমবার হঠাৎ উদয় হন তিনি। সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে জানান, তৃণমূলে আর ফিরবেন না তিনি। 

সঙ্গে বর্ষীয়ান এই বিধায়ক বলেন, ‘আমি তো ২ অক্টোবরই জানিয়ে দিয়েছি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে মুহূর্তে নির্দেশ দেবেন, সেই মুহূর্তে আমি বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেব। শুধু কোচবিহার থেকে কলকাতায় বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে পৌঁছতে যেটুকু সময় লাগে।’

এর পরই তৃণমূলকে বিঁধে মিহিরবাবুর প্রশ্ন, ‘তৃণমূলে এমন অনেক বিধায়ক রয়েছেন যারা বাম বা কংগ্রেস প্রার্থী হিসাবে নির্বাচিত। তারা তৃণমূলের ঝান্ডা নিয়ে মিটিং মিছিল করছেন। তাদের পদত্যাগ করার কোনও নির্দেশ দেননি।’

মিহিরবাবুর মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে, ‘মিহিরবাবু একা শিক্ষিত, বাকি সবাই অশিক্ষিত এটা ভাবার কোনও কারণ নেই। ওনার বাড়ি গেলে ওকে পাওয়া যায় না। এমনকী পার্টি অফিস থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি সরিয়ে দিয়েছেন। এটা মেনে নেওয়া যায় না।’

বিজেপির তরফে মিহিরবাবুর পাশে দাঁড়িয়ে বলা হয়েছে, ‘অশিক্ষিতরাই তৃণমূলের সব পদ আলো করে রয়েছে। মিহিরবাবুর মতো ভদ্রলোক কী করে এতদিন সেখানে টিকে ছিলেন সেটাই আশ্চর্যের ব্যাপার। বিজেপি একটি দুর্নীতিমুক্ত দল। এখানে আসুন, মানুষের হয়ে কাজ করার সুযোগ পাবেন।’

 

বন্ধ করুন