বাড়ি > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ৫ লক্ষ টাকার দাবিতে অপহরণ, প্রতিবেশী যুবকের বাড়ির পাশে মাটি খুঁড়ে মিলল শিশুর দেহ
তুষার চক্রবর্তী ওরফে গদাই।
তুষার চক্রবর্তী ওরফে গদাই।

৫ লক্ষ টাকার দাবিতে অপহরণ, প্রতিবেশী যুবকের বাড়ির পাশে মাটি খুঁড়ে মিলল শিশুর দেহ

  • ভাস্করবাবুরই প্রতিবেশী কলেজ পড়ুয়া মণিরুল শেখ ওরফে ভোলা এ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত। তার বাড়িতে পৌঁছে তাকে ধরে পুলিশ।

১২ বছরের শিশুকে অপহরণ করে ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি। কিন্তু কিছু হওয়ার আগেই কোনও এক অজ্ঞাত কারণের জেরে শিশুটিকে খুন করে বাড়ির পাশে ঝোঁপে মাটিতে দেহ পুঁতে দেয় অভিযুক্ত প্রতিবেশী এক যুবক। পুলিশের জেরায় এ কথা স্বীকারও করেছে সে। ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগরের উত্তরপাড়ায়।

ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার। দুপুর ৩টে থেকে হঠাৎ খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না ১২ বছরের শিশু তুষার চক্রবর্তী ওরফে গদাইয়ের। সারাদিন তার কোনও হদিশ মেলেনি। শনিবার সকালে ষষ্ঠ শ্রেণির ওই ছাত্রের বাবা ভাস্কর চক্রবর্তীর কাছে একটি ফোন আসে। ফোনে জানানো হয়, তার ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে এবং ফিরে পেতে ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে জয়নগর থানায় ছুটে আসেন ভাস্করবাবু। পুলিশকে সব জানালে তদন্ত শুরু হয়।

ভাস্করবাবুর ফোনের কল ডিটেল্‌স থেকে পাওয়া ওই নম্বর ট্র‌্যাক করে কোনও লাভ না হওয়ায় সন্দেহভাজন কয়েকজনকে দ্রুত থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। তখনই রায়দীঘির এক ব্যক্তি অপহরণকারীর খোঁজ দেয়। জানা যায়, ভাস্করবাবুরই প্রতিবেশী কলেজ পড়ুয়া মণিরুল শেখ ওরফে ভোলা এ ঘটনার সঙ্গে যুক্ত। তার বাড়িতে পৌঁছে তাকে ধরে পুলিশ। জেরার মুখে স্বীকার করে নেয় যে সে–ই টাকার লোভে অপহরণ করেছে। কিন্তু ততক্ষণে সব শেষ। সে জানায়, এরইমধ্যে ১২ বছরের গদাইকে সে খুন করে বাড়ির পাশে ঝোঁপে তার দেহ পুঁতে দিয়েছে। ওই শিশুর দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। কেন খুন করা হল তা জানতে পুলিশ মণিরুলকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। এ ঘটনার সঙ্গে আর কারা জড়িত রয়েছে তাও জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন