বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ৩ বছর ধরে চলেছে যৌন নিগ্রহ, বিহার থেকে পালিয়ে সোজা আদালতে নাবালিকা
তিন বছর ধরে চলেছে যৌন নিগ্রহ, বিহার থেকে পালিয়ে সোজা আদালতে নাবালিকা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
তিন বছর ধরে চলেছে যৌন নিগ্রহ, বিহার থেকে পালিয়ে সোজা আদালতে নাবালিকা। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

৩ বছর ধরে চলেছে যৌন নিগ্রহ, বিহার থেকে পালিয়ে সোজা আদালতে নাবালিকা

  • উত্তেজক নাচ করতে হয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। সেই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে দীর্ঘদিন ধরেই সেখান থেকে পালানোর চেষ্টা করছিল ১৬ বছরের কিশোরী এবং ২১ বছরের যুবতী।

টানা তিন বছর ধরে চলেছে যৌন নিগ্রহ। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে উত্তেজক নাচও করতে হয়েছে। অবশেষে চুঁচুড়া আদালতে পালিয়ে গিয়ে মানব পাচার চক্রীদের হাত থেকে রক্ষা পেলেন এক কিশোরী ও যুবতী। আদালতের এক ল ক্লার্কের তৎপরতায় পুলিশি নিরাপত্তা পেলেন দুজন।

তাদের বাড়ি বর্ধমান। সংসারে অভাব থাকায় তারা স্টেশনে গিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি করে পেট চালাতেন। তাদের অভিযোগ, সেই সময় লিলু নামে এক ব্যক্তি তাদের বেশি টাকা আয় করার প্রলোভন দিয়েছিল। সংসারের অভাব মেটাতে টাকা আয় করার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাননি তারা। এর জন্য লিলুর সঙ্গে তারা বিহারে চলে যায়। অভিযোগ, তারপরেই লিলু তাদের বিক্রি করে দেয়। সেখানে টানা তিন বছর ধরে তাদের ওপর যৌন নিগ্রহ চলেছে। সেইসঙ্গে উত্তেজক নাচ করতে হয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে দীর্ঘদিন ধরেই সেখান থেকে পালানোর চেষ্টা করছিল ১৬ বছরের কিশোরী এবং ২১ বছরের যুবতী। অবশেষে বুধবার সেখান থেকে তারা পালাতে সক্ষম হন। বিহার থেকে সরাসরি ট্রেনে করে চুঁচুড়া আদালতে চলে আসেন দুজনে।

সেখানে তাদের সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখেন ল ক্লার্ক পার্থ নিয়োগী। তাদের জিজ্ঞেস করতে মর্মান্তিক সত্য ঘটনা জানতে পারেন তিনি। কোনওরকম দেরি না করে তিনি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। বিষয়টি জানান আইনজীবী তথা মানবাধিকার কর্মী মলয় মজুমদারকে। পরে তিনি পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে দুজনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেন। পুলিশ জানিয়েছে, তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে লিলু নামের ওই ব্যক্তি সহ আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

বন্ধ করুন