বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'আমি দল ছাড়াতেই মাথা ব্যথা?', শুভেন্দুকে স্যারিডন খাওয়ার পরামর্শ কৃষ্ণ কল্যাণীর
উত্তর দিনাজপুরের বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী
উত্তর দিনাজপুরের বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী

'আমি দল ছাড়াতেই মাথা ব্যথা?', শুভেন্দুকে স্যারিডন খাওয়ার পরামর্শ কৃষ্ণ কল্যাণীর

  • বিজেপি ত্যাগী বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী নিজেকে শুভেন্দুর মাথা ব্যথার কারণ হিসেবে আখ্যা দেন।

শুক্রবার নিজের অফিসে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপি ছাড়ার কথা ঘোষনা করেন কৃষ্ণ কল্যাণী। তাঁর তৃণমূল যোগ নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। এই আবহে রাজ্যের বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারী আক্রমণ শানালেন উত্তর দিনাজপুরের বিধায়ক। বিজেপি ত্যাগী বিধায়ক নিজেকে শুভেন্দুর মাথা ব্যথার কারণ হিসেবে আখ্যা দেন। বিধায়কের মন্তব্য, 'আমি দল ছাড়াতে ওঁনার মাথা ব্যথা হচ্ছে? ওনাকে স্যারিডন দিতে হবে।' এরপরই কৃষ্ণ কল্যাণীর তৃণমূল যোগের জল্পনা আরও তুঙ্গে উঠেছে।

উল্লেখ্য, বিজেপি ছাড়লেও এখনই কোনও রাজনৈতিক দলে তিনি যোগ দিচ্ছেন কিনা তা নিয়ে খোলসা করেননি কল্যাণী। তবে এর আগে রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে তিনি যোগাযোগ করেন বলে সূত্রের খবর। রায়গঞ্জের বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণীর সঙ্গে সেখানকার বিজেপি সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরীর দ্বন্দ্ব সর্বজনবিদিত। এছাড়াও বিজেপির জেলা সভাপতি বাসুদেব সরকারকে নিয়ে উত্তর দিনাজপুরে দলের অন্দরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রয়েছে বলেও খবর।

মাসখানেক আগেই উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছিলেন রায়গঞ্জের বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী। নিজের বিধায়কের অফিস থেকে কদিন আগে সরিয়ে দিয়েছেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের ছবি। তাঁর অভিযোগ, বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে তিনি বহুবার জানিয়েছেন যে জেলা বিজেপি নেতৃত্ব তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করছে না।

এই আবহে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রাজ্য নেতৃত্বকে সময় দিয়েছিলেন কৃষ্ণবাবু। কিন্তু, তাঁর অভিযোগের কোনও গুরুত্ব না দিয়ে পাল্টা তাঁকেই শোকজ করেন দলের রাজ্য সহ-সভাপতি প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়। এরই প্রেক্ষিতে চরম অপমানিত হয়ে তিনি দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান কৃষ্ণ কল্যাণী।

 

বন্ধ করুন