বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > চাঁদা তুলে বিধায়ককে এক কেজির রুপোর মুকুট পরাল তৃণমূল কর্মীরা, জুটল পালটা কটাক্ষ
রুপোর মুকুট পরে পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী (ছবি সৌজন্যে ফেসবুক)
রুপোর মুকুট পরে পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী (ছবি সৌজন্যে ফেসবুক)

চাঁদা তুলে বিধায়ককে এক কেজির রুপোর মুকুট পরাল তৃণমূল কর্মীরা, জুটল পালটা কটাক্ষ

  • এলাকাবাসী এবং দলীয় কর্মী-সমর্থকদের থেকে চাঁদা তুলে পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর জন্যে কেনা হয় এক কিলো ওজনের এই মুকুটটি।

বিধায়কের মাথায় এক কেজির রুপোর মুকুট পরিয়ে আপ্লুত হলেন তৃণমূল কর্মীরা। তবে এহেন কাজের জন্যে শাসক দলের কর্মীদের শুনতে হল বিজেপি, সিপিএম-এর পালটা কটাক্ষ। জানা গিয়েছে, এলাকাবাসী এবং দলীয় কর্মী-সমর্থকদের থেকে চাঁদা তুলে পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর জন্যে কেনা হয়েছে এক কিলো ওজনের এই মুকুটটি। মুকুট উপহার দিতে পেরে দলীয় কর্মীরা খুশি হলেও ঘটনায় বিতর্ক শুরু হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় পাণ্ডবেশ্বরের কুমারডিহি পঞ্চায়েতের জোয়ালভাঙ্গা গ্রামে স্থানীয় তৃণমূল কর্মীর উদ্যোগে একটি সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই সভাতে বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকে সেই মুকুট পরিয়ে দেন দলের কর্মীরা। মুকুট পেয়ে আনন্দিত বিধায়ক নিজেও। তাঁর বক্তব্য, এর প্রেক্ষিতে কোনও বিতর্কের অবকাশ নেই। আমাকে ভালোবেসে চাঁদা তুলে গ্রামবাসী এবং দলীয় কর্মীরা এই মুকুটটি আমাকে উপহার দিয়েছেন। এদিকে উপহারটি স্থানীয় কালী মন্দিরে দান করে দেবেন বলে জানিয়েছেন বিধায়ক।

এই বিষয়ে বিতর্কের কোনও কারণ নেই বলে মত অনুষ্ঠানের আয়োজক তথা তৃণমূলের স্থানীয় অঞ্চল সভাপতি কিরিটি মুখোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী স্থানীয় বিধায়ক হওয়ার পাশাপাশি গ্রামের অভিভাবক। সংবর্ধনায় নতুন কিছু করার তাগিদেই রুপোর এই মুকুটটি বিধায়ককে উপহার দিয়েছি। গ্রামের মানুষজন ও দলের কর্মীরা সবাই নিজেদের ইচ্ছে মতো চাঁদা দিয়ে এই মুকুট কিনতে সাহায্য করেছেন।

যদিও এই ঘটনার প্রেক্ষিতে বিজেপির জেলা সভাপতি তথা বিধায়ক লক্ষণ ঘরুই এবং সিপিএম-এর নেতা পঙ্কজ রায় সরকার কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলের। ঘআসফুল শিবিরের এই সংবর্ধনা সভার সমালোচনায় মুখর বিরোধী নেতারা।

বন্ধ করুন