বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মান্ধাতার আমলের গাদা বন্দুক আর নয়, ৩০ কোটির অস্ত্র, গাড়ি এবার বন পাহারায়
জঙ্গল পাহারায় এবার আধুনিক পরিকল্পনা বনদফতরের  (সংগৃহীত)
জঙ্গল পাহারায় এবার আধুনিক পরিকল্পনা বনদফতরের  (সংগৃহীত)

মান্ধাতার আমলের গাদা বন্দুক আর নয়, ৩০ কোটির অস্ত্র, গাড়ি এবার বন পাহারায়

  • সুন্দরবন, পুরুলিয়া ও জঙ্গমহলের জন্যও কিছু সামগ্রী রাখা হবে।

একাধিক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বন ও বনজ সম্পদ রক্ষায় এবার নড়েচড়ে বসেছে বনদফতর। সুন্দরবনের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের বনসম্পদ রক্ষায় এবার বিশেষ পরিকল্পনা বনদফতরের। দফতর সূত্রে খবর, প্রায় ৩০ কোটি টাকা খরচ করে অত্যাধুনিক অস্ত্র ও গাড়ি আনার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। অর্থ দফতরের চূড়ান্ত অনুমোদন পেলেই কাজ দ্রুত এগোবে। মূলত জঙ্গল ও বনজ সম্পদ পাহারা দেওয়ার জন্য এগুলি ব্যবহার করা হবে। কাঠ চুরি,চোরাশিকারীদের রুখতে বনকর্মীদের প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে। যে ধরনের সামগ্রী কেনা হবে তার প্রায় ৯৫ শতাংশই উত্তরবঙ্গে পাঠানো হবে। এমনটাই খবর বনদফতর সূত্রে। তবে সুন্দরবন, পুরুলিয়া ও জঙ্গমহলের জন্যও কিছু সামগ্রী রাখা হবে। আসলে যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে মান্ধাতার আমলের সুরক্ষা ব্যবস্থাকে বাতিল করে এবার বন পাহারায় আধুনিক ব্যবস্থা আনতে চাইছে বনদফতর।

বনদফতর সূত্রে খবর, অন্তত ৩০০টি রিভালবার, ৫০টি পিস্তল, ৫০টি এসএলআর কেনার পরিকল্পনা রয়েছে। জঙ্গলে, পাহাড়়ি এলাকায় টহলদারির জন্য ২০০টি জিপসি গাড়ি কেনার পরিকল্পনা রয়েছে। ৩০০টি বাইক কেনারও পরিকল্পনা রয়েছে। এই বাইকে চেপেই বন সংলগ্ন সংকীর্ণ রাস্তায় টহলদারি করা হবে। 

কিন্তু শুধু অস্ত্র কিনলেই তো হবে না সেই অস্ত্র চালানোর মতো প্রশিক্ষণ কী আছে বনরক্ষীদের? এক্ষেত্রেও পুলিশ ট্রেনিং স্কুলে ফরেস্ট গার্ডদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছে বনদফতর। পাশাপাশি জঙ্গল সংলগ্ন এলাকায় বসবাসকারী অনেককেই সোর্স হিসাবে ব্যবহার করেন বন দফতরের আধিকারিকরা। সেই সোর্সকে আরও কার্যকরী করার ব্যাপারে চেষ্টা হচ্ছে। 

 

বন্ধ করুন