বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Maldah: তরুণীকে খুন করার আগে ধর্ষণ করেছিল শামিম, উঠে এল তদন্তে
 প্রতীকী ছবি (HT_PRINT)

Maldah: তরুণীকে খুন করার আগে ধর্ষণ করেছিল শামিম, উঠে এল তদন্তে

  • ধৃত শামিমকে মালদহ জেলা আদালতে হাজির করানো হলে সে জানান, ‘‌ওই কিশোরীর অন্য ছেলের সঙ্গে প্রেম চলছিল। তাই ওকে মেরে পুকুরে ফেলে দিয়েছি। এই কাজ আমি একাই করেছি।’‌ যদিও তদন্তকারীরা মনে করছে, এটা শামিমের একার কাজ নয়। এর সঙ্গে আরও অনেকে জড়িত আছে।

‌মালদহে পাঁচ দিন ধরে নিখোঁজ থাকা ছাত্রীকে শ্বাসরোধ করেই খুন করা হয়েছিল। খুন করার আগে ওই ছাত্রী ধর্ষণের শিকারও হয়েছিলেন। তদন্তে নেমে পুলিশ এই তথ্যই পেয়েছে। পাশাপাশি প্রেমঘটিত কারণেই যে ওই ছাত্রীকে খুন করা হয়েছে, পুলিশ সেই ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যে এই ঘটনায় ছাত্রীর প্রেমিক শামিম আখতারকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃত শামিমকে জেরা করার সময় খুনের কথা স্বীকার করে নেয়। জেরা করার সময়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন শামিম। শামিমের বিরুদ্ধে পুলিশ খুনের উদ্দেশ্যে অপহরণ, খুন, তথ্য প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা ও নাবালিকাকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে। তদন্তকারীরা ছাত্রীর একটি ব্যাগ পায়। সেই ব্যাগে একটি চিঠি ছিল। সেই চিঠির সূত্র ধরেই পুলিশ শামিমের নামটি জানতে পারে। চিঠিতে লেখা বিষয়বস্তু থেকে তদন্তকারীরা নিশ্চিত হয়ে যায়, প্রেম ঘটিত কারণেই একাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রীকে খুন করা হয়েছে।

এদিন ধৃত শামিমকে মালদহ জেলা আদালতে হাজির করানো হলে সে জানান, ‘‌ওই কিশোরীর অন্য ছেলের সঙ্গে প্রেম চলছিল। তাই ওকে মেরে পুকুরে ফেলে দিয়েছি। এই কাজ আমি একাই করেছি।’‌ যদিও তদন্তকারীরা মনে করছে, এটা শামিমের একার কাজ নয়। এর সঙ্গে আরও অনেকে জড়িত আছে। উল্লেখ্য, গত ১৮ জুন থেকে মালদহ থানার হালনা গ্রামে নিখোঁজ ছিলেন ওই ছাত্রী। গত বুধবার গ্রামেরই একটি পরিত্যক্ত বাড়ি থেকে রক্তের দাগ দেখতে পাওয়া যায়। সেখান থেকেই একটি অন্তর্বাস, ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। এরপরই তদন্তকারীরা শামিমের খবর জানতে পেরে প্রথমে তাঁকে আটক করে জেরা করতে শুরু করে। সেই জেরাতেই প্রকৃত তথ্য উঠে আসে।

বন্ধ করুন