বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > তিন বছরে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধ সবথেকে বেড়েছে পশ্চিমবঙ্গে : NCRB রিপোর্ট
তিন বছরে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধ সবথেকে বেড়েছে পশ্চিমবঙ্গে : NCRB রিপোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)
তিন বছরে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধ সবথেকে বেড়েছে পশ্চিমবঙ্গে : NCRB রিপোর্ট। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য হিন্দুস্তান টাইমস)

তিন বছরে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধ সবথেকে বেড়েছে পশ্চিমবঙ্গে : NCRB রিপোর্ট

  • তবে শিশু জনসংখ্যার নিরিখে পশ্চিমবঙ্গের থেকে অপরাধের হার এমন অনেক রাজ্যে বেশি, যেখানে মোট সংখ্যাটা কম।

সার্বিকভাবে এগিয়ে আছে উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশের মতো রাজ্য। কিন্তু শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গকে ঘিরে উদ্বেগের মাত্রা ক্রমশ বাড়ছে।  জাতীয় ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর (এনসিআরবি) রিপোর্ট অনুযায়ী, গত তিন বছরে দেশের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের সংখ্যা সবার্ধিক বেড়েছে।

‘ক্রাইম ইন ইন্ডিয়া, ২০২০’ শীর্ষক সেই রিপোর্ট অনুযায়ী, শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের ক্ষেত্রে শীর্ষে আছে মধ্যপ্রদেশ (১৭,০০৮)। তারপর আছে উত্তরপ্রদেশ (১৫,২৭১) এবং মধ্যপ্রদেশ (১৪,৩৭১)।  চতুর্থ স্থানে আছে পশ্চিমবঙ্গ (১০,২৪৮)। 

যদিও সেটা একেবারে বাহ্যিক চিত্র বলে ফুটে উঠেছে এনসিআরবির রিপোর্টে। বরং রিপোর্ট অনুযায়ী, গত তিন বছরে শীর্ষে থাকা তিন রাজ্যে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের সংখ্যা কমেছে। অথচ পশ্চিমবঙ্গে সেই সংখ্যাটা বেড়েছে। ২০১৮ সালে পশ্চিমবঙ্গে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের সংখ্যা ছিল ৬,২৮৬। গতবার তা কমে দাঁড়িয়েছিল ৬,১৯১। কিন্তু ২০২০ সালে একলাফে বেড়েছে। শুধু তাই নয়, গত তিন বছরে পশ্চিমবঙ্গে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের সংখ্যা ৬৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়াও সবমিলিয়ে দেশের ৩৬ টি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে মাত্র ন'টিতে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। তামিলনাড়ুতে ৪৪ শতাংশ, জম্মু ও কাশ্মীরে ২৮ শতাংশ, রাজস্থানে ২৭ শতাংশ এবং ওড়িশায় ২১ শতাংশ অপরাধ বেড়েছে।

তবে শিশু জনসংখ্যার নিরিখে পশ্চিমবঙ্গের থেকে অপরাধের হার এমন অনেক রাজ্যে বেশি, যেখানে মোট সংখ্যাটা কম। যেমন সিকিমে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের সংখ্যা ১৪৭। কিন্তু ২০,০০০ শিশু জনসংখ্যা-বিশিষ্ট সেই রাজ্যে অপরাধের হার প্রায় ৭১ শতাংশ। দিল্লিতে শিশুদের বিরুদ্ধে অপরাধের হার ৯১ শতাংশের মতো। আন্দমান এবং নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে তা ১০০ শতাংশের। পশ্চিমবঙ্গে সেই হার ৩৪ শতাংশের মতো।

বন্ধ করুন