ভয় পাবেন না। দুশ্চিন্তা করবেন না। বাংলা মানুষকে কেউ ছুঁতে পারবে না। আশ্বাস মমতার।
ভয় পাবেন না। দুশ্চিন্তা করবেন না। বাংলা মানুষকে কেউ ছুঁতে পারবে না। আশ্বাস মমতার।

বাংলার মানুষকে কেউ ছুঁতে পারবে না, CAA নিয়ে আশ্বাস মমতার

কেউ দরজায় কড়া নেড়ে নথিপত্র দেখতে চাইলে মুখের ওপর বলে দেবেন, আপনার কাছে শুধু ভোটার পরিচয়পত্র রয়েছে। ওটাই যথেষ্ট।

ঠান্ডা মাথায় দিল্লিতে গণহত্যার ছক কষেছিল বিজেপি। তবে দিল্লিতে যা হয়েছে, তা বাংলায় হতে দেব না। উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের এক জনসভায় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এ দিনের জনসভায় মমতা বলেন, ‘বিজেপির কথা বিশ্বাস করবেন না। দিল্লির পরিস্থিতি দেখে আমি ব্যথিত। এত মৃত্যু! এখনও নর্দমা থেকে দেহ উদ্ধার হচ্ছে। কিন্তু দেখুন, এখনও পর্যন্ত একবারও তার জন্য ক্ষমা চায়নি কেন্দ্র। এই মৃত্যুর জন্য একবারও লজ্জা বা বেদনা প্রকাশ করেনি সরকার।’

একই সঙ্গে বিজেপির উদ্দেশে নেত্রী বলেন, ‘আমরা দিল্লি চাই না। আমরা উত্তর প্রদেশ চাই না। তোমরা বাড়িঘর পুড়িয়ে, সব কিছু ধ্বংস করার খেলায় নেমেছো।’

এ দিন সংখ্যালঘুপ্রবণ কালিয়াগঞ্জের এই সভায় মুখ্যমন্ত্রী জানান, রাজ্যে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ), জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) অথবা জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জি (এনপিআর) কার্যকর করতে দেবে না তাঁর সরকার।

তিনি বলেন, ‘ভয় পাবেন না। দুশ্চিন্তা করবেন না। বাংলা মানুষকে কেউ ছুঁতে পারবে না। কেউ দরজায় কড়া নেড়ে নথিপত্র দেখতে চাইলে মুখের ওপর বলে দেবেন, আপনার কাছে শুধু ভোটার পরিচয়পত্র রয়েছে। ওটাই যথেষ্ট।’

এ দিকে এ দিনই কলকাতায় তৃণমূল সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, দিল্লি হিংসায় কেন্দ্রের ভূমিকার প্রতিবাদে বুধবার রাজ্যের ৩৪৩টি ব্লক এবং একশো শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করবে তৃণমূল।

অন্য দিকে মুখ্যমন্ত্রীর নাম না করে তাঁর অভিযোগের পালটা দিয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। এ দিন রাজ্যপাল বলেন, হিংসার সমালোচনা করার সময় তার ধরণ ভিত্তি করে বিভেদ রচনা করা অনুচিত। তাঁর দাবি, 'হিংসার ধরণ যাচাই করে বিভেদ তৈরি করবেন না। দেশের যে কোনও প্রান্তে হিংসা ঘটলেই আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত। দিন পনেরো আগে জলপাইগুড়িতে যা ঘটেছে, তাই নিয়ে আমি বেশি উদ্বিগ্ন।'

রাজ্যপালের মন্তব্যে সায় দিয়ে বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক রথীন বসু বলেন, 'উনি একশো শতাংশ ঠিক বলেছেন।'

উল্লেখ্য, ফেব্রুয়ারি মাসের ২০ ও ২৪ তারিখে জলপাইগুড়ি জেলার ময়নাগুড়িতে তৃণমূল ও বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে এক তৃণমূল সমর্থকের মৃত্যু হয়। দুই পক্ষের একাধিক সমর্থক আহত হন। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় বেশ কয়েকটি বাড়িতে এবং একাধিক দোকানে লুঠপাট হয়

বন্ধ করুন