বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ডাক পাননি শুভেন্দু, সোমবার মেদিনীপুরে মমতার সভায় থাকবেন না অধিকারী বাড়ির কেউ
ফাইল ছবি 
ফাইল ছবি 

ডাক পাননি শুভেন্দু, সোমবার মেদিনীপুরে মমতার সভায় থাকবেন না অধিকারী বাড়ির কেউ

  • শুভেন্দুবাবুকে সভায় আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন কণিষ্ক পন্ডা। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী তো নিজেই বলে দিয়েছেন শুভেন্দু পর্ব শেষ। তার পর আর ওই সভায় যাওয়ার মানে কী?

আমন্ত্রণ পাননি শুভেন্দু অধিকারী। নানা কারণে সোমবার মেদিনীপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় থাকছেন না অধিকারী পরিবারের অন্য সদস্যরাও। এদিন সকালে অধিকারী পরিবারের নিবাসের সামনে দাঁড়িয়ে এমনটাই জানালেন শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা কণিষ্ক পন্ডা। এদিন তিনি জানান, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আচরণে শুভেন্দু অধিকারীর হৃদয় রক্তাক্ত। 

রবিবার রাতে মুখ্যমন্ত্রী মেদিনীপুরে পৌঁছলেও সোমবারও খাঁ খাঁ করছিল কাঁথিতে অধিকারী পরিবারের নিবাসের সামনের রাস্তা। দেখা যায়নি দলীয় সভার আগে প্রস্তুতির সেই ব্যস্ততা। এরই মধ্যে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতা কণিষ্ক পন্ডা জানান, পরিবারের কেউই সোমবার থাকবেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মঞ্চে। 

কণিষ্কবাবু বলেন, গতকাল জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা সাংসদ শিশির অধিকারী পায়ে চোট পেয়েছেন। তাঁর পায়ের নখ উঠে গিয়েছে। অস্ত্রোপচার করে সেই নখ বার করতে হয়েছে চিকিৎসককে। রবিবার রাতেও তিনি ব্যথা কমানোর ওষুধ খেয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে তাঁর পক্ষে সভায় যাওয়া সম্ভব নয়।

পরিবারের আরেক সদস্য, শুভেন্দুর ভাই সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী ব্যক্তিগত কাজে দিল্লিতে আটকে পড়েছেন বলে জানান কণিষ্কবাবু। ফলে তিনিও থাকছেন না সোমবারের সভায়। 

শুভেন্দুবাবুকে সভায় আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন কণিষ্ক পন্ডা। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী তো নিজেই বলে দিয়েছেন শুভেন্দু পর্ব শেষ। তার পর আর ওই সভায় যাওয়ার মানে কী? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আচরণে শুভেন্দু অধিকারীর হৃদয় রক্তাক্ত। গত ২ মাস ধরে শুভেন্দুবাবুর বিরুদ্ধে এক সাংসদকে লেলিয়ে দেওয়া হয়েছে। শুভেন্দুবাবু পদত্যাগ করতে সেই সাংসদকে আবার হুগলি রিভার ব্রিজ কমিশনের চেয়ারম্যান করা হয়েছে। মেঘনাদের মতো একের পর এক তির ছোড়া হয়েছে শুভেন্দু অধিকারীকে লক্ষ্য করে।  

কণিষ্ক পন্ডার দাবি, ‘প্রশাসনের ভয়ে বা দাদাদের চাপে অনেকে হয়তো মনটাকে বাড়িতে ফেলে রেখে দেহটা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় যাবেন। কিন্তু সেই মনের অধিকারী হবেন শুভেন্দু অধিকারী।’ তিনি বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় যোগ দিতে কাউকে বারণ করেননি শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীদের বেছে বেছে পদ থেকে সরিয়ে দিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুভেন্দু অধিকারী কিন্তু এখনো তৃণমূলেই রয়েছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে না তাড়ালে তিনি কিন্তু দল ছাড়ছেন না।’

 

বন্ধ করুন