বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Nusrat Jahan: ‘BJP ভোট চাইতে এলে বাঁশ, কঞ্চি নিয়ে দৌড় করান’, নিদান নুসরাতের

Nusrat Jahan: ‘BJP ভোট চাইতে এলে বাঁশ, কঞ্চি নিয়ে দৌড় করান’, নিদান নুসরাতের

নুসরাত জাহান। 

নুসরাত জাহান ছাড়াও এদিনের প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত ছিলেন বসিরহাট দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক সপ্তর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্বরোজ বন্দ্যোপাধ্যায়, উত্তর ২৪ পরগনার জেলা পরিষদের সদস্য সাহানুর মণ্ডল, যুব তৃণমূলের সভাপতি শরিফুল মণ্ডল প্রমুখ।

পঞ্চায়েত ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই রাজনৈতিক নেতাদের বক্তব্যে সরগরম হচ্ছে রাজ্য রাজনীতি। রাজনীতির ময়দানে বাড়ছে কু-কথার স্রোত। এবার বিজেপিকে বাঁশ দিয়ে দৌড় করানোর নিদান দিলেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহান।পঞ্চায়েত ভোটের আগে রাজ্যে জেলায় জেলায় নবজোয়ার কর্মসূচি করছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। বসিরহাটে নবজোয়ার কর্মসূচি রয়েছে আগামী সপ্তাহে। তার আগে রবিবার প্রস্তুতি সভায় যোগ দিয়ে এমন নিদান দিয়েছেন তৃণমূলের তারকা সাংসদ।

এদিন নুসরাত বলেন, ‘পঞ্চায়েত ভোটের আগে কেউ আপনাদের মাথা ঘোরানোর চেষ্টা করলে বাঁশ, কঞ্চি যা পাবেন তাই দিয়ে দৌড় করাবেন।’ নুসরাত জাহান ছাড়াও এদিনের প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত ছিলেন বসিরহাট দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক সপ্তর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্বরোজ বন্দ্যোপাধ্যায়, উত্তর ২৪ পরগনার জেলা পরিষদের সদস্য সাহানুর মণ্ডল, যুব তৃণমূলের সভাপতি শরিফুল মণ্ডল প্রমুখ।

এদিনের জনসভায় রাজ্যের টাকা আটকে রাখা নিয়ে কেন্দ্রের সমালোচনা করার পাশাপাশি ইডি, সিবিআই তদন্ত নিয়েও সমালোচনায় সরব হয়েছেন নুসরাত জাহান। প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে বহু তৃণমূল নেতৃত্ব এর আগেও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে টাকা আটকে রাখার অভিযোগ তুলেছেন। নুসরাত এদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে টাকা আটকে রাখার অভিযোগ তুলে বলেন, ‘দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যাতে মানুষের কাজ করতে না পারেন তার জন্য ১০০ দিনের টাকা আটকে কেন্দ্র। আমরা দিল্লি গিয়ে বাংলার মানুষের জন্য কিছু চাইলে দেয় না। তোমরা বাংলার মানুষের জন্য কিছুই করোনি। তাহলে কেন বাংলার মানুষ তোমাদের ভোট দেবে।’ এর পাশাপাশি ইডি, সিবিআইকে দিয়ে তদন্ত করানোর নামে হেনস্থা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তোলেন তৃণমূল সাংসদ।

বিজেপি ছাড়াও কংগ্রেসকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি নুসরাত জাহান। তিনি বলেন, ‘মানুষের মধ্যে থাকলে মানুষের মন জয় করা যায়। কে দিল্লি থেকে বা বহরুমপুর থেকে উড়ে আসবে আর বড় বড় ভাষণ দিয়ে মানুষের মন জয় করে নিয়ে চলে যাবে সেটা হবে না। ২০১৯-এর ভোটে আমি জিতেছি তারপরে দিল্লি গিয়েছি। বিজেপি বলেছিল ২০২১-এর ভোটে ‘আবকি বার দশো পার।’ কিন্তু আর করতে পারেনি। মাঝ সমুদ্রে ডুবে গিয়েছিল।’

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বন্ধ করুন