বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > অধৈর্য হবেন না, ‘ঠিক সময়’ মতুয়াদের নাগরিকত্ব দেবে বিজেপিই, আশ্বাস দিলীপের
সোমবার সকালে বারাসতে চা চক্রে দিলীপ ঘোষ। 
সোমবার সকালে বারাসতে চা চক্রে দিলীপ ঘোষ। 

অধৈর্য হবেন না, ‘ঠিক সময়’ মতুয়াদের নাগরিকত্ব দেবে বিজেপিই, আশ্বাস দিলীপের

  • এই নিয়ে বনগাঁর সাংসদদে মানুষের প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে বলে স্বীকার করে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘সাংসদ মানুষকে কথা দিয়েছেন মানুষ তাঁকে জিজ্ঞাসা করছে। সেজন্য তিনি সরকারকে বলেছেন, আমরাও বলেছি।'

মতুয়াদের নাগরিকত্ব ইস্যুতে ফের একবার আশ্বাস দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সোমবার সকালে উত্তর ২৪ পরগনার বারাসতে চা চক্রে অংশগ্রহণ করে দিলীপবাবু বলেন, ‘ঠিক সময়ে নাগরিকত্ব পাবেন মতুয়ারা। অধৈর্য হওয়ার কিছু নেই।’

গত লোকসভা নির্বাচনের আগে মতুয়াদের নাগরিকত্বের আশ্বাস দিয়েছিল বিজেপি। গত বছর সেই লক্ষ্যে সংসদে CAA পাশ করায় কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু তার পর বছর ঘুরতে চললেও মতুয়ারা এখনো নাগরিকত্ব পাননি বলে অভিযোগ। এই নিয়ে মতুয়াদের মধ্যে ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছে তৃণমূল। এমনকী মতুয়াদের অবিলম্বে নাগরিকত্ব দেওয়ার দাবিতে কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি লিখেছেন মতুয়া মহাসংঘের সংঘাধিপতি তথা বনগাঁর সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। 

সোমবার সকালে বারাসতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে দিলীপবাবু বলেন, ‘ভাষণ ছাড়া এতদিন মতুয়াদের কে কী দিয়েছে? বিজেপি বলেছে, এবং সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে CAA করেছে। যাদের ভোট দিয়েছেন তাদের জিজ্ঞাসা করুন, কেন ৭৫ বছর ধরে হয়নি? বিজেপি কথা দিয়ে কথা রেখেছে। বিজেপিই নাগরিকত্ব দেবে। যারা ভোট দিয়েছেন তারা যেন বিজেপির ওপর ভরসা রাখেন। এক বছরের মধ্যে অধৈর্য হওয়ার কোনও কারণ নেই। পদ্ধতি মেনে বিজেপিই করবে। আর কারও করার হিম্মত নেই, ইচ্ছাও নেই’।

এই নিয়ে বনগাঁর সাংসদদে মানুষের প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে বলে স্বীকার করে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘সাংসদ মানুষকে কথা দিয়েছেন মানুষ তাঁকে জিজ্ঞাসা করছে। সেজন্য তিনি সরকারকে বলেছেন, আমরাও বলেছি। যথা সময়ে হবে। এই ভরসা রাখুন’।

তবে এই নিয়ে নির্দিষ্ট কোনও সময়সীমা দেননি রাজ্য বিজেপি সভাপতি। তিনি বলেন, ‘ঠিক সময়ে হবে। চিন্তা করবেন না। মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়’। 

মতুয়াদের নাগরিকত্বের বিষয়টিকে হাতিয়ার করে বিধানসভা নির্বাচনে উত্তর ২৪ পরগনা ও নদিয়ার বিস্তীর্ণ এলাকায় পায়ের তলায় মাটি ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করছে তৃণমূল। যাতে বেশ চাপে রয়েছে বিজেপি।

 

বন্ধ করুন