বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > আলুচাষে ক্ষতির মুখে পড়ে পূর্ব বর্ধমানে আত্মঘাতী আরেক আলুচাষি
নিহত ভাস্করবাবুর ব্যাঙ্কের পাসবই দেখাচ্ছেন তাঁর ভাই।
নিহত ভাস্করবাবুর ব্যাঙ্কের পাসবই দেখাচ্ছেন তাঁর ভাই।

আলুচাষে ক্ষতির মুখে পড়ে পূর্ব বর্ধমানে আত্মঘাতী আরেক আলুচাষি

  • পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, দুই মেয়ের বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর মা ও স্ত্রীকে নিয়ে বাস ছিল ভাস্করবাবুর। রবিবার রাতে খেয়ে দেয়ে শুয়ে পড়েছিলেন তিনি। সোমবার সকালে পাশের ঘর থেকে তাঁকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়।

দেনার দায়ে আত্মঘাতী হলেন পূর্ব বর্ধমানের আরও এক আলুচাষি। সোমবার সকালে এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় মেমারির পাহাড়হাটি এলাকায়। প্রয়াত চাষি ভাস্কর মণ্ডল (৫৩) সম্প্রতি আলুচাষ করে ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন। রবিবার রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হন তিনি। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে মেমারি থানার পুলিশ।

মৃতের ভাই জানিয়েছেন, দাদা আলুচাষ করেছিলেন। প্রাকৃতিক বিপর্যের জেরে চাষে ব্যাপক ক্ষতি হয়। অন্য চাষেও ফসলের তেমন দাম পাননি। যার জেরে আর্থিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি।

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, দুই মেয়ের বিয়ে হয়ে যাওয়ার পর মা ও স্ত্রীকে নিয়ে বাস ছিল ভাস্করবাবুর। রবিবার রাতে খেয়ে দেয়ে শুয়ে পড়েছিলেন তিনি। সোমবার সকালে পাশের ঘর থেকে তাঁকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। পরিবার ও প্রতিবেশীরা দেহ নামিয়ে হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। দেহ উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ।

নিহত কৃষকের পরিবারের দাবি, মহাজনের থেকে ও সমবায় মিলিয়ে প্রায় ১.৫ লক্ষ টাকা ঋণ নিয়ে আলুচাষ করেছিলেন ভাস্করবাবু। ফলন মার খাওয়ায় ঋণ শোধ নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন তিনি। ক্রমণ মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করেন। দেনার দায়েই তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ভাই স্বরূপ মণ্ডল।

বলে রাখি, ডিসেম্বরের শুরুতে বৃষ্টিতে রাজ্যের একাধিক জেলায় আলুচাষ ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে। যার পর জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে চাষিদের আত্মঘাতী হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।  

 

বন্ধ করুন