বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Stone mine: বন্ধ বীরভূমের পাথর খাদান, জট কাটাতে জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠক মালিকদের
পাথর খাদান। ফাইল ছবি

Stone mine: বন্ধ বীরভূমের পাথর খাদান, জট কাটাতে জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠক মালিকদের

  • পরিবেশ সংক্রান্ত ছাড়পত্র পাওয়ার জন্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক। তবে পাথর খাদান মালিকরা জানিয়েছেন, এনিয়ে তারা আরও একবার নিজেদের মধ্যে বৈঠক করবেন। তারপরে তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

পরিবেশগত ছাড়পত্রের অভাবে গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে বন্ধ হয়ে রয়েছে বীরভূমের বহু পাথর খাদান। যারফলে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন প্রায় লক্ষাধিক শ্রমিক। শুধু শ্রমিকই নন, এই শিল্পের সঙ্গে পরোক্ষভাবে জড়িত মানুষজনও কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। তাই জট কাটাতে তৎপর হয়েছেন পাথর খাদান মালিকরা। এনিয়ে জেলাশাসকের সঙ্গে আবারও বৈঠকে বসলেন পাথর খাদান মালিকরা।

মূলত পরিবেশ সংক্রান্ত ছাড়পত্রের কারণেই এই খাদানগুলি বন্ধ করা হয়েছিল। মালিকদের অভিযোগ ছিল, তাদের পরিবেশ গত ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি। সেই সংক্রান্ত বিষয় নিয়েই জেলাশাসকের সঙ্গে গতকাল বৈঠকে বসেছিলেন মালিকরা। বৈঠকের শেষে জেলাশাসক জানিয়েছেন, বৈধতা ছাড়া পাথর খাদান চালু করা যাবে না। এছাড়াও, পরিবেশ সংক্রান্ত ছাড়পত্র পাওয়ার জন্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক। তবে পাথর খাদান মালিকরা জানিয়েছেন, এনিয়ে তারা আরও একবার নিজেদের মধ্যে বৈঠক করবেন। তারপরে তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ২৯ জুলাই জাতীয় পরিবেশ আদালত বীরভূমের ২১৭ টি পাথর খাদানের মধ্যে ২১১ টি পাথর খাদানকে অবৈধ ঘোষণা করেছিল। যার ফলে ছটি পাথর খাদানের কাছে বৈধতা ছিল। গত বছর কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল পাথর খাদান থেকে শুরু করে ক্র্যাশার খতিয়ে দেখে সেগুলি অবৈধভাবে চালানো হচ্ছে বলে জানতে পারেন। বীরভূম জেলার মোট ১৭০০ টি পাথর ক্র্যাশার মধ্যে ৮০০ টি পাথর ক্র্যাশার চলছে। এতদিন এই সমস্ত খাদান থেকে শুরু করে ক্র্যাশার অবৈধভাবে চলছিল ‘কেষ্টদা’র মদতে। কেউ সেগুলি বন্ধ করতে পারেনি। তবে অনুব্রত গ্রেফতার হওয়ার পরেই গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে সেগুলি বন্ধ হয়ে যায়।

বন্ধ করুন